kalerkantho


বাকৃবিতে তিন শিক্ষার্থীকে ছাত্রলীগের মারধর

বাকৃবি প্রতিনিধি    

২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৮:৪৭



বাকৃবিতে তিন শিক্ষার্থীকে ছাত্রলীগের মারধর

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) সাংবাদিক হতে ইচ্ছুক প্রথম বর্ষের তিন শিক্ষার্থীকে মারধর করেছে ছাত্রলীগের কর্মীরা। এ সময় আরো দুই শিক্ষার্থীকে হুমকি দেয় তারা।

গতকাল মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ নাজমুল আহ্সান হলে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় তাদেরকে হল থেকে বের হয়ে যাওয়ার হুমকি দেওয়া হয় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে বাকৃবি সাংবাদিক সমিতির সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি দেন শহীদ নাজমুল আহ্সান হলের প্রথম বর্ষের কৃষি অনুষদের মেহেদী হাসান, জাহিদ হাসান, মাৎস্যবিজ্ঞান অনুষদের রাকিবুল হাসান এবং দ্বিতীয় বর্ষের ভেটেরিনারি অনুষদের শাহরিয়ার আমিন ও আরিফ হোসেন। হলের ছাত্রলীগকর্মীদের না জানিয়ে ভাষা দিবসে ফুল দেওয়ার কারণে প্রথম বর্ষের ছাত্রদের হলের গেস্ট রুমে ডেকে পাঠান কৃষি অনুষদের শাহেদ হোসেন। এ সময় গেস্ট রুমে সহকারী হিসেবে ছিলেন কৃষি অর্থনীতি ও গ্রামীণ সমাজবিজ্ঞান অনুষদের রকিবুল হাসান হৃদয়, কৃষি অনুষেদের মো. মনির, রোকনুজ্জামান রিয়াদ এবং আবু নাঈম। তারা সবাই শহীদ নাজমুল আহ্সান হলের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র ও ছাত্রলীগের কর্মী।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই ছাত্রলীগকর্মীরা ওদের জানায়, পাঁচ মিনিটের মধ্যে হল থেকে বের হয়ে যেতে হবে। জাহিদ ও রাকিবুলকে গেস্ট রুম থেকে বের করে দিয়ে মেহেদীকে চড়-থাপ্পর ও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন মাৎস্যবিজ্ঞান অনুষদের অনিক ফেরদৌস, কৃষি প্রকৌশল এবং কারিগরি অনুষদের তানভির শাকিল। তার সহকারী হিসেবে ছিলেন কৃষি প্রকৌশল ও কারিগরি অনুষদের মো. ইয়াসিন ও মাশহুর আহমেদ।

তারা সবাই দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ও ছাত্রলীগের কর্মী। এরপর ওই হলের দ্বিতীয় বর্ষের শাহরিয়ার ও আরিফকে গেস্ট রুমে ডেকে নিয়ে হুমকি দেন তৃতীয় বর্ষের শাহেদ ও রকিবুল। হুমকিস্বরূপ তারা বলেন, 'শহীদ নাজমুল আহ্সান হলে থেকে ছাত্রলীগ ছাড়া অন্য কোনও সংগঠন করা যাবে না। সাংবাদিকতায় যুক্ত হলে তোমাদের দেখে নেওয়া হবে। অন্য কোনও সংগঠন করলে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে হলে থাকতে হবে। '

পরে রাত সাড়ে ১০টার দিকে জাহিদ ও রাকিবুলকে পুনরায় গেস্ট রুমে ডেকে নিয়ে চড়-থাপ্পর দেন ছাত্রলীগ কর্মী অনিক ও তানভির শাকিল। এ বিষয়ে আজ বুধবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা।

সূত্র জানায়, হলের ওই জ্যেষ্ঠ ছাত্ররা প্রথম বর্ষের নবীন ছাত্রদের নিয়মিত ঘণ্টার পর ঘণ্টা গেস্টরুমে মানসিক নির্যাতন করেন। কারণে অকারণে প্রথম বর্ষের বন্ধুদের দিয়ে একই বর্ষের ছাত্রদের মারধর করান ছাত্রলীগের কর্মীরা। প্রথম বর্ষের ছাত্রদের দিয়ে ব্যবহারিক খাতা ও অ্যাসাইনমেন্ট লিখে নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। এ বিষয়ে শহীদ নাজমুল আহ্সান হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড.সিদ্দিকুর রহমান বলেন, "আমি বিষয়টি সম্পর্কে অবগত হয়েছি। "

ঘটনার পরে রাতে ওই হলে এসে ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন বাকৃবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মিয়া মোহাম্মদ রুবেল। সেই সঙ্গে হলের জ্যেষ্ঠ কর্মীদের সমস্যা সমাধানের কথা বলেন তিনি। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম জাকির হোসেন বলেন, "লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। পরবর্তীতে বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। " একই বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. মো. আলী আকবর বলেন, "এ রকম ঘটনা দুঃখজনক। সকল সংগঠন সৌহার্দ্যপূর্ণভাবে সহাবস্থান করে প্রতিভার বিকাশ ঘটাবে। আমি প্রক্টরের সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বলব। "  

 


মন্তব্য