kalerkantho


শতবর্ষী ফাল্গুন মেলা, উৎসবমুখর তিতাস

ওমর ফারুক মিয়াজী, দাউদকান্দি (কুমিল্লা)    

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৪:৫৮



শতবর্ষী ফাল্গুন মেলা, উৎসবমুখর তিতাস

কুমিল্লার তিতাসে গাজীপুর খান হাই স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে শতবর্ষী ঐতিহ্যবাহী ফাল্গুন মেলা অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে শত বছরেরও বেশি সময় ধরে। প্রতিবছরের ন্যায় এবারও পাঁচ দিনব্যাপী মেলা বসেছে সেখানে। ৫ ফাল্গুন শুরু হওয়া এ মেলা চলবে ৯ ফাল্গুন পর্যন্ত। মেলায় হরেক রকম পণ্যের পসরা, নাগরদোলা, সার্কাস ছাড়াও সবচেয়ে আকর্ষণীয় দিক হচ্ছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী কুস্তি খেলা।

গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী এ কুস্তি খেলা দেখতে তিতাস, দাউদকান্দি, হোমনা, মেঘনা ও বাঞ্ছারাপুরসহ ও পার্শ্ববর্তী কয়েকটি জেলা ও উপজেলার বিনোদনপ্রিয় মানুষের সমাগমে উৎসবমুখর হয়ে উঠেছে তিতাস।

আজ সোমবার সরেজমিনে জানা যায়, প্রতিবছর এ মেলা এলে উপজেলার প্রতিটি বাড়িতেও শুরু হয় উৎসব ও স্বজনদের আগমন। শ্বশুর বাড়িতে জামাইকে দাওয়াত করা হয় সপরিবারে এবং জামাইকে বরণ করা হয় মেলার ঐতিহ্যবাহী বেলের শরবতে। সব মিলিয়ে এ শুধু মেলা নয়, শত বছরেরও বেশি সময় ধরে চলে আসা এ মেলা পরিণত হয়েছে তিতাসসহ আশপাশের কয়েকটি উপজেলার জনসাধারণের উৎসবে। এমনকি অনেক প্রবাসীও বছরের এই সময় ছুটি নিয়ে দেশে চলে আসেন মেলা উপভোগ করতে।

উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. আক্তারুজ্জামান নিজাম চেয়ারম্যান বলেন, "আমি জম্মের পর থেকে দেখছি এ মেলার আনন্দ উৎসব। মেলার আগমন ঘটলেই কয়েকটি ইউনিয়নের অর্ধশত গ্রামের বাড়িগুলাতে আত্মীয়-স্বজন ভেড়াতে আসে।

মেয়েরা তাদের বাবার বাড়িতে ভেড়াতে আসে। আমরা আমাদের বাবা-মার কাছে শুনে আসছি বেড়াতে আসার কথা । এখনও সেই রেওয়াজ চলে আসছে। " মেলার আয়োজক কমিটির সভাপতি স্বপন সরকার বলেন, পীর শাহবাজের (র.) স্মরণে শত বছরেরও বেশি সময় ধরে এই ওরশ। আর ওরশকে ঘিরে মেলা ও গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী কুস্তি  খেলার আয়োজন করা হয়। তাই প্রতি বছরের ন্যায় এ বছরও কুস্তি খেলার পাশাপাশি বিভিন্ন বিনোদনের আয়োজন করা হয়েছে। ভবিষ্যতে আরও জাকজমকপূর্ণভাবে ঐতিহ্যবাহী এ মেলার আয়োজন করা হবে, যেন পরবর্তী প্রজন্ম গ্রামীণ ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে পারে।

মেলা উপলক্ষে কুস্তি খেলা পরিচালনা করেন প্রবীণ কুস্তিগীর মো. রফিক খান ও উপজেলা সদর কড়িকান্দি ইউপি সদস্য মো. লেয়াকত আলী। খেলার অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন মনির হোসেন মাস্টার। তিতাস থানা ওসি মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, "এ পীর শাহবাজের (র.) স্মরণে শত বছরেরও বেশি সময় ধরে এ মেলা চলে আসছে। এলাকার স্বেচ্ছাসেবকের পাশাপাশি আমাদের পুলিশ সদস্যরা আইনশৃঙ্খলার দায়িত্বে নিয়োজিত থাকায় সুন্দরভাবে মেলা চলছে। "

 


মন্তব্য