kalerkantho


নিয়ামতপুরে গৃহবধূ হত্যায় সাবেক স্বামী গ্রেপ্তার

নওগাঁ প্রতিনিধি    

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৬:৪১



নিয়ামতপুরে গৃহবধূ হত্যায় সাবেক স্বামী গ্রেপ্তার

নওগাঁর নিয়ামতপুর উপজেলায় স্ত্রী হত্যার ১৮ ঘণ্টার মধ্যেই পলাতক সাবেক স্বামীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

থানা সূত্রে জানা যায়, গত শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টায় উপজেলার হাজিনগর ইউনিয়নের সাবইল হিন্দু পাড়ার রমনির মেয়ে সনেকাকে (৩৫) ছুরিকাঘাতে হত্যা করে পালিয়ে যায় একই গ্রামের মৃত. দয়ালের ছেলে বিশ্বনাথ বিশু।  এর ১৮ ঘণ্টার মধ্যেই সনেকার সাবেক স্বামী বিশ্বনাথ বিশুকে  জয়পুরহাট বাসস্ট্যান্ড থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

জানা যায়, সাবইল হিন্দু পাড়ার রমনির মেয়ে সনেকার প্রায় ১৫ বছর আগে বিয়ে হয়  একই গ্রামের মৃত দয়ালের ছেলে বিশ্বনাথ বিশুর সঙ্গে। দাম্পত্য জীবনে তাদের সংসারে এক ছেলে ও এক মেয়ের জন্ম হয়। কিন্তু বিশ্বনাথ বিশু তার ভাগনে চন্দনকে (৪)  পানিতে ডুবিয়ে হত্যার দায়ে আট বছর ছয় মাস কারাভোগ করে। স্বামী কারাগারে থাকা অবস্থায় স্ত্রী সনেকা ভালোবেসে হাজিনগর ইউনিয়নের নন্দীগ্রামের আইয়ুব আলীকে নিজ ধর্ম পরিবর্তন করে ফাতেমা নাম গ্রহণ করে বিয়েতে আবদ্ধ হন। নতুন দাম্পত্য জীবনে সাত বছরের একটি ছেলে রয়েছে। বিশ্বনাথ বিশু আট বছর ছয় মাস কারাভোগ করে গত অক্টোবর মাসে জেল থেকে ছাড়া পায়।

শুক্রবার বেলা ১২টায় সনেকা ওরফে ফাতেমা (৩৫) ভাই হেমানের বাড়িতে বেড়াতে যান। সন্ধ্যা ৭টায় বাড়ির পাশে বিশ্বনাথ বিশু আকস্মিকভাবে সনেকা ওরফে ফাতেমাকে ছুরি দিয়ে আঘাত করে পালিয়ে যান। সনেকা ওরফে ফাতেমাকে গুরুতর অবস্থায় নিয়ামতপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে রাত ৮টায় সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক সনেকা ওরফে ফাতেমাকে মৃত ঘোষণা করেন। ফাতেমার বর্তমান স্বামী আইয়ুব আলী বাদী হয়ে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পুলিশ বিশ্বনাথকে গ্রেপ্তারে জোর তৎপরতা শুরু করে। অবশেষে এসআই তপন কুমার সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে জয়পুরহাট বাসস্ট্যান্ড থেকে গত শনিবার সন্ধ্যা ৭টায় বিশুকে গ্রেপ্তার করেন।

নিয়ামতপুর থানার ওসি রফিকুল ইসলাম খান জানান, থানায় মামলা দায়েরের পর অভিযান চালানো হয়। গোপন তথ্যের ভিত্তিতে শনিবার সন্ধ্যায় জয়পুরহাট বাসস্ট্যান্ড থেকে বিশ্বনাথ বিশুকে গ্রেপ্তার করা হয়।

 



মন্তব্য