kalerkantho


দিনাজপুরে রোসাগোল্ড জাতের আলুর মাঠদিবস

দিনাজপুর প্রতিনিধি   

১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:১৭



দিনাজপুরে রোসাগোল্ড জাতের আলুর মাঠদিবস

হল্যান্ড থেকে আমদানিকৃত নতুন জাতের রোসাগোল্ড আলু'র মাঠ দিবস পালন করা হয়েছে। আজ শনিবার দিনাজপুর জেলা সদরের বনকালী গ্রামে অয়োজিত মাঠ দিবসে রোসাগোল্ড আলুর ফলন এবং ক্ষেত পরিদর্শন করেন স্থানীয় চাষিরা।

নাভিধোসা লেটব্লাইড রোগ প্রতিরোধে নিজস্ব শক্তি রয়েছে ওই জাতের আলুতে। ফলে স্প্রে দেওয়ার প্রয়োজন পড়ছেনা আবাদে। একরে ফলন মিলছে ১৭ থেকে ১৮ টন করে। এতে লাভবান হচ্ছেন আলু চাষিরা।  

অতিরিক্ত সার এবং কীটনাশক ছাড়াই রোসাগোল্ড জাতের আলু চাষ করে কৃষক লাভবান হওয়ায় হল্যান্ড থেকে ক্যারোলাস এবং এ্যালুয়েট জাতের আরও দুই ধরণের বীজ আমদানি করার উদ্যোগ নিয়েছে বীজ আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান মালিক এন্ড কোম্পানী। সরকারের অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছেন প্রতিষ্ঠানটি।  

কোম্পানীর ব্যবস্থাপক নুরুল আলম জানান, আলু উৎপাদনের ক্ষেত্রে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান ৭ম। সারাদেশে আলু চাষ হয় মাত্র ৫ হাজার হেক্টর জমিতে। বিশেষ করে আবহাওয়ার বিরুপ প্রভাবে নাভিধোসা লেটব্লাইড রোগের প্রাদুভাব ঘটে দিনাজপুর অঞ্চলে।

এতে মোড়ক লেগে বিপুল পরিমাণ ক্ষেত নষ্ট হয়ে যায়। ৮ থেকে ১০ বার স্পে দিয়ে বাড়তি খচর করেও ফসল রক্ষা অথবা আশানুরূপ ফলন ঘরে তুলতে পারেনা কৃষকরা।  

কিন্তু রোসাগোল্ড জাতের আলুর রোগ প্রতিরোধ শক্তি অন্যান্য জাতের তুলনায় অনেকে বেশি। রোসাগোল্ড জাতের আলু আবাদে কৃষকদের বাড়তি খরচের বোঝা বইতে হয়না। এই জাত আবাদে মানব দেহের জন্য ক্ষতিকারক কীটনাশক প্রয়োগের দরকার পড়েনা।  

আলু চাষি জাহাঙ্গীর আলম জানান, নতুন জাতের রোসাগোল্ড আলু চাষ করে প্রত্যাশার চেয়ে বেশি ফলন পেয়েছেন তিনি। ছোট বড় মিলে প্রতিটি গাছে ১৫ থেকে ২০টি পর্যন্ত আলু ধরেছে তার জমিতে। কীটনাশক প্রয়োগ ছাড়াই অন্যদের তুলনায় ভাল ফলন পেয়েছে সে।  

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সফিকুল ইসলাম। এতে বক্তব্য দেন কৃষি সম্প্রসারণের উপজেলা কর্মকর্তা মতলুবুর রহমান, কৃষি কর্মকর্তা আনসার আলী, বীজ আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান মালিক এন্ড কোম্পানীর ব্যবস্থাপক নুরুল আলম, টেরিটরি কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম এবং কোম্পানীর বীজ পরিবেশক মশিউর রহমানসহ অন্যান্যরা।  


মন্তব্য