kalerkantho


দাউদকান্দিতে সালিশ বৈঠক করায় শ্রীঘরে মেম্বার

দাউদকান্দি (কুমিল্লা) প্রতিনিধি   

১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৪:৩৯



দাউদকান্দিতে সালিশ বৈঠক করায় শ্রীঘরে মেম্বার

দাউদকান্দি উপজেলার জিংলাতলী ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের মেম্বার এক স্কুল পড়ুয়া ছাত্রী প্রেমের টানে চলে যাওয়ায় তার সালিশ বৈঠক করায় নারী নির্যাতন মামলায় নাছির উদ্দিন মেম্বার এখন শ্রীঘরে। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার উপজেলার ইটাখোলা গ্রামে।

দাউদকান্দি মডেল থানার ওসি তদন্ত আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, এলাকার মেম্বারসহ কয়েকজনকে আসামী করে থানায় একটি নারী নির্যাতন মামলা করায় তাকে গ্রেপ্তার করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

এলাকবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, এক সম্পাহ আগে ইটাখোলা গ্রামের জহির মিয়ার হাইস্কুল পড়ুয়া মেয়ে মৌসুমী পার্শ্বের গ্রামের এক ছেলে সাথে প্রেমের টানে চলে যায়। মেয়ের বাবা জহির মিয়া বিষয়টি স্থানীয় ইউপি মেম্বার নাছির উদ্দিনকে বিষয়টি জানালে তিনি এক সালিশ বৈঠক করে মেয়েটিকে উদ্ধার তার বাবার নিকট ফিরিয়ে দেওয়া হয়। পরে কয়েকদিন পর মেয়েটি আবার তার প্রেমিকের সাথে চলে য়ায়।

এরপর মেয়ের বাবা জহির মিয়া স্থানীয় ইউপি মেম্বার নাছির উদ্দিনসহ মেয়ের প্রেমিক আলাল হোসেনকে আসামী করে দাউদকান্দি মডেল থানায় নারী নির্যাতান মামলার দায়ের করে। ইউপি মেম্বার নাছির উদ্দিনকে আটক করে কুমিল্লা জেলা হাজতে প্রেরণ করা হয়।

এদিকে নাছির উদ্দিনের বাবা আবদুল মালেক বলেন, জহির হাই স্কুল পড়ুয়া মেয়ে প্রেমের তার প্রেমিকের সাথে চলে যায়। তার মেয়েকে উদ্ধার ফেরৎ দেওয়ার সময় আমার ছেলে জিম্বাদার হয়েছিল। উপকার করায় আমার ছেলে বর্তমানে মেম্বার হয়েও তাকে মিথ্যা মামলা দিয়ে জেলে দিয়েছে।

 


মন্তব্য