kalerkantho


মাহেন্দ্র শ্রমিকদের হামলায় টুঙ্গিপাড়া পৌর মেয়রসহ আহত ১৫

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২২:৫৫



মাহেন্দ্র শ্রমিকদের হামলায় টুঙ্গিপাড়া পৌর মেয়রসহ আহত ১৫

গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার ঘোনাপাড়ায় থ্রি হুইলার (মাহেন্দ্র) শ্রমিকদের হামলায় টুঙ্গিপাড়া পৌর মেয়র আহমেদ হোসেন মীর্জাসহ ১৫ জন আহত হয়েছে। মেয়রসহ আহত ৩ জনকে গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

 

আজ বুধবার বিকেল ৪টার দিকে টুঙ্গিপাড়া পৌরসভার মেয়র শেখ আহম্মদ হোসেন মির্জা তার পরিষদের গাড়ী নিয়ে গোপালগঞ্জ জেলা সদরে আসছিলেন। ঘটনাস্থলে গাড়ির সাইড দেয়াকে কেন্দ্র করে স্থানীয় মাহেন্দ্র চালকদের সাথে মেয়রের ড্রাইভারের কথাকাটাকাটি হয়। এরই এক পর্যায়ে মাহেন্দ্র শ্রমিকরা মেয়রের ড্রাইভারকে মারধর শুরু করে। মেয়র ঠেকাতে গেলে এ সময় তাঁকেও মারধর করা হয়।

এ খবর টুঙ্গিপাড়া পৌছালে টুঙ্গিপাড়ার শত শত লোকজন দেশীয় লাঠি-শোটাসহ ঘোনাপাড়ায় স্ট্যান্ডে অবস্থান নেয়। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বেড়ে যায়। এক পর্যায়ে গোপালগঞ্জ সদরের লোকজন ও মাহেন্দ্র শ্রমিকরা এক জোট হয়ে টুঙ্গপাড়ার লোকজনের সাথে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। বেলা ৪টা থেকে থেমে থেমে দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। চলে বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত।

এ সময় ১টি মাহেন্দ্র গাড়ি ও একটি মটর সাইকেল ভাংচুর করা হয়।

টুঙ্গিপাড়া পৌর সভার মেয়র শেখ আহম্মদ হোসেন মির্জা বলেন, 'আমার ড্রাইভার ও ছেলে মাহেন্দ্র ড্রাইভারকে সাইড দিতে বলে। এই নিয়ে তাদের মধ্যে কথাকাটাকাটি হলে আমি শান্ত করতে গাড়ী থেকে নামি। এ সময় মাহেন্দ্র শ্রমিকরা আমাকে ও আমার ছেলেকে মারপিট করে। আমি প্রশাসনের কাছে এই ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি। '

গোপালগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ আমিনুল ইসলাম বলেন, সামন্য ব্যাপার নিয়ে এই ঘটনার সূত্রপাত। আমরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছি। সেখানে বিপুল পরিমান পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এলাকায় থমথমে ভাব বিরাজ করলেও পরিস্থিতি বর্তমানে পুলিশের নিয়ন্ত্রণে  রয়েছে। '  


মন্তব্য