kalerkantho


পরীক্ষা চলাকালে অসদুপায়ে বাধা প্রদান

জয়পুরহাটে মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে লাঞ্ছিতের অভিযোগ

জয়পুরহাট প্রতিনিধি    

১২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২০:১৭



জয়পুরহাটে মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে লাঞ্ছিতের অভিযোগ

জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল উপজেলায় একটি পরীক্ষা কেন্দ্রে নজরদারির কারণে অসদুপায়ে সহযোগিতা করতে না পেরে প্রধান শিক্ষক কর্তৃক কেন্দ্রের তদারকি কর্মকর্তাকে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। পরে এ নিয়ে কেন্দ্র সচিব সমঝোতা করার চেষ্টা করলেও লাঞ্ছিত ওই কর্মকর্তা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে নালিশ করেন।

 

জানা গেছে, ক্ষেতলাল পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ পরীক্ষা কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত এসএসসি পরীক্ষা চলছিল। আজ রবিবার ছিল সমমান গণিত পরীক্ষা। কেন্দ্রে তদারকি কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শফিউল আলম। কিন্তু ওই কেন্দ্রের একটি কক্ষে নিজ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অসদুপায় অবলম্বনে সহযোগিতার চেষ্টা চালায় কেন্দ্রের জেনারেল শাখার হল সুপার ও পৌলুঞ্জ নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ওয়াজেদ আলী শাহিন। এ বিষয়টি নজরে আসায় কৌশলে অসদুপায়ে বাধা দিতে মাধ্যমিক কর্মকর্তা সেখানে অবস্থান নেন। এমন সময় প্রধান শিক্ষক ওয়াজেদ আলী শাহিন শিক্ষার্থীদের সামনেই দায়িত্ব পালনে অনিয়মের মিথ্যা অভিযোগ তুলে মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শফিউল আলমকে মারতে উদ্যত হয় এবং অশ্লীল ভাষায় গালাগাল করে তাঁকে লাঞ্ছিত করেন। কেন্দ্র সচিবের মাধ্যমে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছালে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।  

লাঞ্ছিত শিক্ষা কর্মকর্তা শফিউল আলম বলেন, ‘ওই শিক্ষক হল সুপারের দায়িত্ব পালন করলেও তাঁর বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অবৈধভাবে সহযোগিতা করছিলেন। বুঝতে পেরে আমি সেখানে অবস্থান করায় আমার সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করা হয়েছে’।

 

তবে তাঁর এই অভিযোগ অস্বীকার করেন হল সুপার ওয়াজেদ আলী শাহিন। তিনি বলেন, তাঁর বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করা হয়েছে। বরং অন্য হল বাদ দিয়ে ওই মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা তাঁর শিক্ষার্থীদের হলে বেশি নজরদারি করায় প্রতিবাদ করেছি মাত্র।

এ ব্যাপারে কেন্দ্র সচিব এবং ক্ষেতলাল পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘পরীক্ষা নিয়ে ব্যস্ত ছিলাম। বিষয়টি জানার পর থানায় খবর দেই। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।  

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ কামরুজ্জামান বলেন, ‘নকলমুক্ত পরিবেশে এসএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হলেও এ ধরনের ঘটনা অনাকাঙ্খিত। তদন্ত সাপেক্ষে এ বিষয়ে আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে।


মন্তব্য