kalerkantho


কেরানীগঞ্জে নকল সার কারখানা সিলগালা

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি   

৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২০:৪০



কেরানীগঞ্জে নকল সার কারখানা সিলগালা

কেরানীগঞ্জ মডেল থানাধীন হযরতপুর ইউনিয়নের কাজিকান্দি গ্রামের এসপি মিজানের স্ত্রী নিপা মিজানের নামে মেঘনা ফার্টিলাইজার নামে একটি নকল সার কারখানার ভিতর থেকে কাচামাল জব্দ করা হয়। পরে কারখানার লাইসেন্স ও পরিবেশের ছাড়পত্র না থাকার অপরাধে সার কারখানাটি সিলগালা করে দেওয়া হয়।

আজ সোমবার সকাল ১১টায় ঢাকা জেলা পুলিশ ও উপজেলা কৃষি অফিসের সহযোগিতায় কারখানাটিকে সিলগালা করে উপজেলা প্রশাসন।  

এ সময় উপস্থিত ছিলেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রে ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) কেরানীগঞ্জ সার্কেল মোঃ পারভেজুর রহমান জুমন,  ঢাকা জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ মনিরুল ইসলাম, উপজেলা কৃষি অফিসার ফখরুল আলম, কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার মোসাঃ মরিয়ম খাতুন, কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ ফেরদাউস হোসেন ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের পেশকার কাম নাজির মোঃ রাকিব হোসেন চয়ন ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন আয়নাল।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার ফখরুল আলম বলেন, কেরানীগঞ্জে এসপি মিজানের নকল সার কারখানার সংবাদ প্রকাশের পর পরই বিষয়টির তদন্তে নামে কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের একটি দল। তদন্ত দলটি প্রথমে গতকাল রবিবার দুপুরে ঘটনাস্থলে গিয়ে কারখানার ভিতরে প্রবেশ করতে পারেনি। এরই ধারাবাহিকতায় আমি আজ সোমবার সকাল ১১টায় ঢাকা জেলা পুলিশ ও স্থানীয় চেয়ারম্যানের সহযোগিতায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়ে মোবাইল কোর্টের উদ্দেশে কারখানায় যাই। কারখানার ভিতর গিয়ে জেনারেল ম্যানেজার সোহেল রানা ও ম্যানেজার আবুল হোসেনের সাথে কথা বলে জানতে পারি কারখানাটি এসপি মিজান সাহেবের স্ত্রী নিপা মিজানের নামে সত্বাধিকারী রয়েছে এবং কারখানাটির নাম মোল্লা এনপিকেএস কোং। উক্ত নিপা মিজানের কাছ থেকে সাইদুর রহমান খান কারখানাটি ভাড়া নিয়ে মেঘনা ফার্টিলাইজার নাম ধারণ করে ব্যবসা করে আসছে। সাইদুর রহমান মেঘনা ফার্টিলাইজারের আড়ালে এনপিকেএস ও জৈবসার তৈরি করে আসছিল। এ সময় আমরা কারখানার ভিতর থেকে সার তৈরি করার উদ্দেশে আনা দেড় হাজার বস্তা গরুর গোবর, দেড় হাজার বস্তা মুরগীর বিষ্টা, দেড় হাজার বস্তা খেতের মাটি, কিছু প্রস্তুত করা মিশ্র সার, মেঘনা ফার্টিলাইজার এনপিকেএস ও জৈবসারের প্লাষ্টিকের বস্তা দেখতে পেয়ে তা জব্দ করা হয়।

পরে কারখানাটি সিলগালা করে দেওয়া হয়। এ বিষয়ে কেরানীগঞ্জ মডেল থানায় মামলা করার প্রস্তুতি চলছে।  

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রে ও সহকারী কমিশনার পারভেজুর রহমান জুমন বলেন, উপজেলা কৃষি অফিসার মৌখিক ও স্বশরীরে অভিযোগের ভিত্তিতে আজ সোমবার সকালে হযরতপুর কাজিকান্দি গ্রামে জগন্নাথপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে মোবাইল কোর্ট করার উদ্দেশে যাই। সেখানে গিয়ে কারখানার জিএম ও ম্যানেজারের সাথে কথা বলে বুঝতে পারি। কারখানাটির কোন বৈধ্য লাইসেন্স ও পরিবেশের ছাড়পত্র নাই এবং কারখানার পাশেই রয়েছে একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়। কারখানার ভিতরের কাচামাল দেখে কালের কণ্ঠের প্রকাশিত সংবাদের সত্যতা পাওয়া যায়। কারখানাটির পাশে যেহেতু শিশুদের জন্য একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে যে কোন সময় বিদ্যালয়ের বড় ধরনের ক্ষতি সাধন না হয় সে জন্য কারখানাটি সিলগালা করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নিয়মিত মামলা করার জন্য আদেশ দেওয়া হয়।  


মন্তব্য