kalerkantho


তৃতীয় দফা পেছাল একরাম হত্যা মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ

ফেণী প্রতিনিধি   

৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৫:৫৬



তৃতীয় দফা পেছাল একরাম হত্যা মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ

ফেনীর বহুল আলোচিত উপজেলা চেয়ারম্যান একরামুল হক একরাম হত্যা মামলার নির্ধারিত দিনে আজ সোমবার রাষ্ট্রপক্ষ দুজন স্বাক্ষী হাজির করতে পারেনি। এ নিয়ে মোট তিন দফায় তিনটি ধার্য তারিখ থাকলেও স্বাক্ষী হাজির করতে ব্যর্থ হলো রাষ্ট্রপক্ষ। আদালত আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি মামলার পরবর্তী তারিখ ঘোষণা করেন। গতকাল ১০ জন স্বাক্ষীর নামে সমন জারিরও নির্দেশ দেওয়া হয়।  

আদালত সূত্রের বরাত দিয়ে সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) হাফেজ আহাম্মদ জানান, সোমবার বেলা ১২টার দিকে মামলার আসামিদের জেলা ও দায়রা জজ আমিনুল হকের আদালতে হাজির করা হয়। এ দিন স্বাক্ষী বিলাস চন্দ্র সাহা ও মো. সোহেলের স্বাক্ষী প্রদানের কথা থাকলেও তারা না আসায় রাষ্ট্রপক্ষ সময় প্রার্থনা করেন। গত ২৮ নভেম্বর ও ৪ জানুয়ারি এদের হাজির হবার কথা ছিল। কিন্তু এরা আসেনি। বিচারক মামলার স্বাক্ষী, ফুলগাজী উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অনিল বণিক, একরামের গাড়িচালক মো. মামুন, মো. সোহেল, আইয়ুব আলী, মো. কাউছার, হেলাল উদ্দিন, ডা. মো. নাইম হোসেন ও বিলাস চন্দ্র দাসসহ মোট ১০ জন স্বাক্ষীর বিরুদ্ধে সমন জারির নির্দেশ দেন। বিচারক নির্ধারিত স্বাক্ষীদের অনুপস্থিতির ব্যাপারে পিপির কাছে কৈফিয়ত তলব করলে তিনি সময় প্রার্থনা করেন।

সোমবার আদালতে আসামি আব্দুল্লাহিল মাহমুদ শিবলু, মামুন, রুবেল, জাহিদুল ইসলামসহ ১০ আসামির পক্ষে তাদের আইনজীবী আহসান কবীর বেঙ্গল ও কামরুল হাসান জামিনের আবেদন করলেও আদালত তা নাকচ করেন।

প্রসঙ্গত, ফেনীর ফুলগাজী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়মী লীগের সভাপতি একরামুল হককে ২০১৪ সালের ২০ মে ফেনী সদরের একাডেমি এলাকার অধূনালুপ্ত বিলাসী সিনেমা হলের সামনে হত্যা করা হয়। বর্তমানে মামলাটির স্বাক্ষীদের স্বাক্ষ্যগ্রহণ চলছে। এ পর্যন্ত ২১ জন স্বাক্ষীর জবানবন্দি গ্রহণ ও জেরা সম্পন্ন করা হয়। মামলার ৫৬ আসামির মধ্যে ৪৫ জন গ্রেপ্তার হন। এদের মধ্যে ৩৩ জন ফেনী কারাগারে, চারজন কুমিল্লা কারাগারে ও আটজন জামিন আছেন। সোমবার আদালতে সকল আসামি হাজির ছিলেন। রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি (পিপি) হাফেজ আহাম্মদ বলেন, স্বাক্ষীরা হাজির না হওয়ায় আদালতের কাছে সময় প্রার্থনা করা হয়েছে।

 

 


মন্তব্য