kalerkantho


স্যার পড়তে চাই, বিয়ে বসতে চাই না

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:৪৬



স্যার পড়তে চাই, বিয়ে বসতে চাই না

কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার দাউদকান্দি আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির মেধাবী ছাত্রী হাসেনা হেনার (১৪) আগামিকাল শুক্রবার ধুমধাম করে বিয়ের আয়োজন করেছে তার পরিবার। আজ বৃহস্পতিবার উপজেলা সদরদপ্তরের পাশেই একটি ভাড়া বাসায় এ বিয়ের আয়োজনের খবর পেয়ে মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা বিয়ে বাড়িতে হাজির হন। তিনি কনের পিতা-মাতাকে সতর্ক করার পরও সেই বিয়ের আয়োজন চলছে।

ছাত্রী ও স্কুল সূত্রে জানা যায়, উপজেলার চাষিরচর গ্রামে কবির হোসেনের কন্যা ও আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির মেধাবি ছাত্রী হাসনা হেনার সাথে সৌদি প্রবাসী আলেক মিয়ার (৩০) বিয়ের আয়োজন করা হয়। হাসনা হেনা বিষয়টি স্কুলের এক শিক্ষককে জানায়। ওই শিক্ষক বিষয়টি উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মাকর্তা শামিমা সুলতানাকে জানান। শামিমা সুলতানা সাংবাদিকদের নিয়ে ছাত্রীর বাড়িতে গেলে তার অভিভাবকরা বাল্য বিয়ে দিবে না বলে আশ্বাস দেয়।

কিন্তু প্রশাসনের কর্মকর্তারা চলে আসার পরপরেই গায়ে হলুদ দেওয়ার আয়োজন করে তারা। এ ব্যাপারে নাম প্রকাশ না করা শর্তে ওই স্কুলের শিক্ষক বলেন, হাসনা হেনা খুবই মেধাবি ছাত্রী। সে পঞ্চম শ্রেণিতে গোল্ডেন এ-প্লাস ও অষ্টম শ্রেণিতে জিপ্এি-৫ পেয়েছে। তার ইচ্ছা সে বড় হয়ে ডাক্তর হবে। তার বিয়ের কথা শুনে সে আমাকে জানায় 'স্যার আমি লেখা পড়া করতে চাই, এ বয়সে বিয়ে বসতে চাই না। '

উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা শামিমা সুলতানা বলেন, আমরা বাল্য বিয়ের খবর পেয়ে ওই বাড়িতে গেলে নবম শ্রেণির ছাত্রী হাসনা হেনার সাথে কথা হয়।  সে জানায় ম্যাডাম আমি এ বয়সে বিয়ে বসতে চাইনা, আমি পড়তে চাই। ছাত্রী আমাদের সাথে কথা বলায় তার মা রেহেনা আক্তার হাসনা হেনাকে চুলের মুটো ধরে মারধর করে এবং আমাদের সাথেও খারাপ আচরণ করে। পরে তার বাবা কবির হোসেন এর কাছ থেকে মুচলেকা নিয়ে চলে আসি। তবে বিকেলে শুনতে পারলাম তাকে নাকি আগামি কাল বিয়ে দেওয়ার জন্য হলুদ পোড়ার আয়োজন করা হচ্ছে। আমরা প্রশাসনের সাথে আলোচনা করে ব্যবস্থা নেবো।


মন্তব্য