kalerkantho


মাগুরায় এক প্রতারকের যত কাহিনী

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২১:১১



মাগুরায় এক প্রতারকের যত কাহিনী

সেনাবাহিনীতে চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণার অভিযোগে মিলন (৪৫) নামে এক ব্যক্তিকে আটক করেছে মাগুরা ডিবি পুলিশ। সদর উপজেলার চেঙ্গারডাঙ্গী গ্রাম থেকে গত মঙ্গলবার রাতে তাকে আটক করা হয়। আটক মিলনের কাছ থেকে একাধিক মোবাইল ও সিম পাওয়া গেছে। এ ছাড়া সে তার ইসলাম ও সনাতন ধর্মের দুধরনের পরিচয়ের কথা পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে।

সে মিলন চক্রবর্তী পরিচয়ে একাধিকবার ভারতে গেছে। তার বাংলাদেশ ও ভারতের বিভিন্ন ব্যাংকে একাউন্ট আছে। ডিবি পুলিশের এস আই সালাহউদ্দিন আহমেদ জানান, আটক মিলন চেঙ্গারডঙ্গী গ্রামের চয়ন বিশ্বাস নামের এক যুবককে সেনা বাহিনীতে চাকরি দেওয়ার কথা বলে ৬ লক্ষ টাকা নেয়। পরে চাকরি না পেয়ে চয়ন বিশ্বাস ডিবি পুলিশের কাছে অভিযোগ করে। এ অভিযোগের ভিত্তিতে মঙ্গলবার রাতে মিলনকে শশুর বাড়ি থেকে আটক করে। পরে জিজ্ঞাসাবাদ ও পুলিশ তদন্তে তার বিষয়ে সন্দেহজনক অনেক তথ্য বেরিয়ে এসেছে।

এস আই সালাহউদ্দিন আরো জানান, মিলন চেঙ্গারডাঙ্গী এলাকায় ৪ বছর আগে নিজেকে মিলন চক্রবর্তী পরিচয় দিয়ে মিতা বিশ্বাস নামে এক কলেজ ছাত্রীকে বিয়ে করে। তারপর থেকে সে শ্বশুর বাড়িতেই অবস্থান করছিল। নিজেকে ঠাকুর পরিবারের সন্তান দাবী করে সে দীর্ঘদিন এলাকায় পূজা ও বিয়ের অনুষ্ঠানে পৌরহিত্য করে আসছে। এ ছাড়া চাকুরি দেওয়াসহ নানা প্রতারণা করে আসছে।

বর্তমানে তার বিরুদ্ধে তদন্ত করতে গিয়ে দেখা গেছে তার পূর্বের নাম আশিকুর রহমান মিলন। পিতা মৃত লুৎফর রহমান, গ্রাম কাঞ্চন নগর উপজেলা ডুমুরিয়া জেলা খুলনা। সে  পুর্বের ঠিকানায় স্থানীয় একটি হাফেজি মাদরাসা থেকে ১৮ পারায় কোরআনে হাফেজ। কিন্তু সে এই পরিচয় গোপন করে সনাতন ধর্মীয় লোক পরিচয়ে মাগুরায় চেঙ্গারডাঙ্গীর মিতা বিশ্বাসকে বিয়ে করেছে। খুলনায় গ্রামের বাড়িতে তার প্রথম স্ত্রী শিল্পী ও সান নামে একটি পুত্র সন্তান রয়েছে।

এই বিষয়টি গোপন করে সে মাগুরায় অন্য ধর্মীয় পরিচয়ে নানা প্রতারণা করে আসছে। এ সব কারণে তার বিরুদ্ধে সন্দেহজনক সব ধরনের বিষয়ই পুলিশ খতিয়ে দেখছে। তার কাছ থেকে বেশ কিছু গুরুত্বপুর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।


মন্তব্য