kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বরগুনায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে জলদস্যু 'সাগর বাহিনী'র আত্মসমর্পণ

বরগুনা প্রতিনিধি    

২০ অক্টোবর, ২০১৬ ১৪:৫০



বরগুনায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে জলদস্যু 'সাগর বাহিনী'র আত্মসমর্পণ

দস্যুতার মতো ঘৃণ্য অপরাধ ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে সরকারের কাছে আত্মসমর্পণ করেছে সুন্দরবনকেন্দ্রিক জলদস্যু দল 'সাগর বাহিনী'। আজ বৃহস্পতিবার বরগুনা সার্কিট হাউজ মাঠে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মো. আসাদুজ্জামান খান কামালের কাছে অস্ত্র ও গোলাবারুদ জমা দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে আত্মসমর্পণ করেন সাগর বাহিনীর ১৩ সদস্য।

আত্মসমর্পণকালে দস্যুরা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে ২০টি দেশি-বিদেশি আগ্নেয়াস্ত্র ও ৫৯৬ রাউন্ড গুলি জমা দেন।

জমা দেওয়া অস্ত্রের মধ্যে রয়েছে ৮টি বিদেশি একনলা বন্দুক, তিনটি দেশীয় একনলা বন্দুক, একটি বিদেশি দোনলা বন্দুক, দুটি ২২ বোর বিদেশি এয়ার রাইফেল, চারটি এলজি এবং দুটি বিদেশি কাটা রাইফেল।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় আত্মসমর্পণের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। এর আগে মন্ত্রী বেলা সাড়ে ১১টায় র‍্যাবের একটি হেলিকপ্টারে বরগুনা পৌঁছান। এ সময় তাঁর সঙ্গে ছিলেন র‍্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ।

আত্মসমর্পণকারী দস্যুরা হলেন সাগর বাহিনীর প্রধান মো, আলমগীর শেখ ওরফে সাগর (৩৫), বাহিনীর সেকেন্ড ইন কমান্ড মো. কামরুল ফকির (২৭), বাহিনীর সদস্য  আবদুল মালেক (৩৮), মো. কাদের শেখ (৩৮), মো. হাফিজুর রহমান শেখ (৪৬), মো. কাবীর শেখ (৩৪), মো. দেলোয়ার শেখ (৩৮), মো. হাসান সরদার (২২), মো. নান্না ফকির (২৯), মো. তৌহিদুল ইসলাম (৪৩), মো. রাজু শেখ (২৮), মো.  লিটন হাওলাদার (৩৪) এবং মো. তরিকুল গাজী (৩২)। আত্মসমর্পণকারী সব দস্যুর বাড়ি বাগেরহাট জেলার বিভিন্ন এলাকায় বলে র‍্যাব জানিয়েছে।

আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠানে বরগুনার জেলা প্রশাসক ড. মুহা. বশিরুল আলম, পুলিশ সুপার বিজয় বসাক পিপিএমসহ র‍্যাব ৮ এর উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আত্মসমর্পণকারী দস্যুদের স্বাভাবিক জীবনে স্বাগত জানান ও তাদেরকে সহযোগিতার আশ্বাস দেন। এ ছাড়া তিনি অন্যান্য দস্যুদের অস্ত্র ত্যাগ করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার আহ্বান জানান। মন্ত্রী বলেন, "বাংলাদেশকে সন্ত্রাসমুক্ত করতে আমরা দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। সুন্দরবন দেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ এলাকা ও ইকনমিক জোন। এ এলাকাকে বিপদমুক্ত রাখতে সরকারও দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। এ জন্য এ এলাকায় র‍্যাব, পুলিশ এবং কোস্ট গার্ডের সক্ষমতা বৃদ্ধি করা হয়েছে। "

এর আগে গতকাল বুধবার বিকেল ৫টার দিকে সুন্দরবনের গহীনে দরজার খালে সাগর বাহিনীর সদস্যরা র‍্যাব ৮ এর কাছে আত্মসমর্পণ করেন।

 


মন্তব্য