kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


খাগড়াছড়িতে তিন জেএমবি সদস্যের ১০ বছর কারাদণ্ড

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ অক্টোবর, ২০১৬ ২২:৫২



খাগড়াছড়িতে তিন জেএমবি সদস্যের ১০ বছর কারাদণ্ড

বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে করা মামলায় নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামায়াতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) তিন সদস্যকে ১০ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন খাগড়াছড়ির বিশেষ ট্রাইব্যুনাল।  একই সঙ্গে তাঁদের দুই হাজার টাকা করে জরিমানা ও অনাদায়ে আরো দুই বছর সশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দেওয়া হয়েছে।

আজ সোমবার বেলা ১১টায় খাগড়াছড়ি জেলা ও দায়রা জজ মো. ইনামুল হক ভূঁইয়ার বিশেষ ট্রাইবুন্যাল এ রায় ঘোষণা করেন।  

দণ্ডিত আসামিরা হলেন- কুমিল্লার দেবীদ্বার উপজেলার ছুটনা গ্রামের বাসিন্দা জেএমবির চট্টগ্রাম অঞ্চলের দ্বিতীয় শীর্ষ নেতা আবদুর রহিম ওরফে জাহিদ হোসেন, খাগড়াছড়ির মাটিরাঙা উপজেলার শান্তিপুর গ্রামের দেলোয়ার হোসেন ও মো. ইউনুছ। রায় ঘোষণার সময় তারা আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে গত ২৪ সেপ্টেম্বর একই ঘটনায় এই তিন আসামিসহ পাঁচজনকে অস্ত্র আইনে করা মামলায় সাত বছর করে কারাদণ্ডাদেশ দেন জেলা ও দায়রা জজ মো. ইনামুল হকের বিশেষ ট্রাইবুন্যাল।  

৩ জেএমবি সদস্যের কারাদণ্ডের বিষয়টি নিশ্চিত করে খাগড়াছড়ি জেলা ও দায়রা জজ আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি অ্যাডভোকেট বিধান কানুনগো জানান, জেলার মাটিরাঙা উপজেলার দুর্গম শান্তিপুর এলাকায় ২০০৯ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর গভীর রাতে নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন জেএমবির প্রশিক্ষণ ক্যাম্পের সন্ধান পায় নিরাপত্তা বাহিনী। তারা প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে অভিযান চালিয়ে গ্রেনেড, ডেটোনেটর ও গান পাউডারসহ বিভিন্ন বিস্ফোরকদ্রব্য উদ্ধার করে এবং চারজনকে আটক করে। পরে আরো একজনকে আটক করা হয়। ঘটনার পরদিন পাঁচজনকে আসামি করে ১৯০৮ সালের অস্ত্র ও বিস্ফোরকদ্রব্য আইনের ৪ ধারাসহ ২০০৮ সালের সন্ত্রাসবিরোধী আইনের ৬(১)(খ) ধারায় মাটিরাঙা থানায় দুটি মামলা করা হয়। দীর্ঘ তদন্ত শেষে ২০০৯ সালের ১১ ডিসেম্বর দুটি মামলায় অভিযোগপত্র দেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও মাটিরাঙা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মিজানুর রহমান। এর মধ্যে অস্ত্র আইনে করা মামলায় পাঁচজন এবং বিস্ফোরকদ্রব্য আইনে করা মামলায় তিনজনকে আসামি করা হয়।  

এদিকে রায় ঘোষণাকে কেন্দ্র করে আদালত এলাকায় কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করে পুলিশ।


মন্তব্য