kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের ২২টি স্পিড ব্রেকার অপসারণ

নিজস্ব প্রতিবেদক, সাভার (ঢাকা)    

১৪ অক্টোবর, ২০১৬ ১৮:৪২



ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের ২২টি স্পিড ব্রেকার অপসারণ

চীনের প্রেসিডেন্ট শি চিনপিং আজ শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার কিছু পরে ঢাকায় এসেছেন। আগামীকাল শনিবার সকালে তিনি সড়কপথে সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করতে আসবেন।

এ উপলক্ষে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের আমিনবাজার থেকে জাতীয় স্মৃতিসৌধ পর্যন্ত মহাসড়কের ২২টি গতিরোধক (স্পিড ব্রেকার) তুলে ফেলা হয়েছে।

সড়ক ও জনপদ (সওজ) বিভাগের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী মো. শামসুজ্জোহা বলেন, "চীনের প্রেসিডেন্ট সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধে আগমন উপলক্ষে আমিনবাজার থেকে জাতীয় স্মৃতিসৌধ পর্যন্ত মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে থাকা ২২টি গতিরোধক তুলে সমান করে দেওয়া হয়েছে। তবে জনস্বার্থে যেসব স্থানে গতিরোধক প্রয়োজন শুধু সেসব স্থানেই পরবর্তীতে গতিরোধক পুনরায় নির্মাণ করে দেওয়া হবে। কিন্তু সেগুলোও নির্দেশনা পাওয়ার পর করে দেওয়া হবে।

ঢাকা জেলা ট্রাফিক ইন্সপেক্টর (টিআই) ফরহাদ হায়দার বলেন, "মহাসড়কে কোনো গতিরোধক থাকবে না- এটাই নিয়ম। সড়কে দুর্ঘটনা কমাতে জনগণের দাবির মুখে বিভিন্ন স্থানে গতিরোধক নির্মাণ করার প্রয়োজন হয়। তবে চীনের প্রেসিডেন্টের আগমন উপলক্ষে সেগুলো তুলে ফেলা হলেও গুরুত্বপূর্ণ স্থান জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে ও সিঅ্যান্ডবি বাসস্ট্যান্ডে গতিরোধক খুবই প্রয়োজন।

গণপূর্ত অধিদপ্তরের উপসহকারী প্রকৌশলী মিজানুর রহমান বলেন, "চীনের প্রেসিডেন্ট শি চিনপিং শনিবার সকাল ৯টায় সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধে প্রবেশ করবেন। পরে তিনি মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন। এরপর তিনি জাতীয় স্মৃতিসৌধ চত্বরে 'উদয় পদ্ম' গাছের একটি চারা রোপণ করবেন এবং পরিদর্শন বইতে স্বাক্ষর শেষে সকাল সোয়া ৯টার দিকে জাতীয় স্মৃতিসৌধ এলাকা ত্যাগ করবেন। "

এদিকে, এ বিষয়ে সাভার সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) নাজমুল হক জানান, স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্স, সেনাবাহিনী, র‍্যাব এবং পুলিশ ছাড়াও চীনা দূতাবাসের নিরাপত্তা কর্মকর্তারাও স্মৃতিসৌধ পরিদর্শন করেছেন। নিরাপত্তার সব খুঁটিনাটি তাঁরা দেখে গেছেন। তাঁদের পরামর্শ অনুযায়ী ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের গতিরোধকগুলো অপসারণ করা হয়েছে। আজ শুক্রবার দুপুরের পর থেকে পুলিশের দেড় হাজার সদস্য ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে মোতায়েন করা হয়েছে। শুক্রবার রাত থেকে মহাসড়কে টহল দিতে শুরু করবে ব্যাটালিয়ন পুলিশ সদস্যরা। হেলিকপ্টারের চক্কর আর কমান্ডো পাহারায় সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধে যাবেন চীনের প্রেসিডেন্ট। ঢাকা থেকে সফরসঙ্গীদের নিয়ে সড়কপথে তিনি পৌঁছাবেন সেখানে।

বিশ্বের অন্যতম শক্তিধর এ রাষ্ট্রপ্রধানের গাড়িবহর ঘিরে থাকবেন বাংলাদেশের স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্সের কমান্ডোরা। সামনে-পেছনে থাকবে সেনাবাহিনী, র‍্যাব এবং পুলিশের গাড়ি। আর পুরো নিরাপত্তার বিষয়টি আকাশ থেকে পর্যবেক্ষণ করা হবে হেলিকপ্টারের মাধ্যমে।

স্মৃতিসৌধে পৌঁছনোর এক কিলোমিটার আগে গাড়িবহরের সামনে যোগ হবে সেনাবাহিনীর একটি নান্দনিক মোটর শোভাযাত্রা। সেখান থেকে ধীরগতিতে গাড়িবহর গিয়ে পৌঁছাবে স্মৃতিসৌধ চত্বরে। এরপর সফরসঙ্গীদের নিয়ে শহীদ বেদিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদন করবেন শি চিনপিং। এ সময় তিনি সেখানে এক মিনিট নীরবতা পালন করবেন। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে স্মৃতিসৌধে রক্ষিত পরিদর্শন বইয়ে নিজ অনুভূতি লিখবেন শি চিনপিং। স্মৃতিসৌধে অবস্থানকালে এই পুরো সময় আকাশে চক্কর দেবে হেলিকপ্টার। সিসিটিভি ক্যামেরা দিয়েও নিরাপত্তার খুঁটিনাটি পর্যবেক্ষণ করবে ঢাকা জেলা পুলিশ।

 


মন্তব্য