kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


তানোরে যুবদল সভাপতির বিরুদ্ধে ছাত্রদল সভাপতির মামলা!

তানোর (রাজশাহী) প্রতিনিধি   

১৩ অক্টোবর, ২০১৬ ২২:১১



তানোরে যুবদল সভাপতির বিরুদ্ধে ছাত্রদল সভাপতির মামলা!

রাজশাহীর তানোর থানা যুবদল সভাপতি ও তানোর পৌর মেয়র মিজানের বিরুদ্ধে এবার থানা ছাত্রদল সভাপতি মামলা করলেন। গতকাল বুধবার এবং আজ বৃহস্পতিবার থানা ছাত্রদল সভাপতি আব্দুল মালেকসহ যুবলীগ নেতা রনি পৃথক পৃথক ভাবে বাদী হয়ে দুটি মামালা দায়ের করেন মিজানের বিরুদ্ধে।

এঘটনায় গতকাল বিএনপি’র অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীদের স্বাক্ষরিত মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে নিন্দা ও  প্রতিবাদলিপি সাংবাদিকসহ বিভিন্ন দপ্তরে প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

জানা গেছে, তানোর  থানা যুবদল সভাপতি ও তানোর পৌর মেয়র মিজান দীঘদিন থেকে তানোরসহ কয়েকটি থানা এলাকায় ডিস সংযোগের ব্যবসা করে। কয়েক মাস আগে আমশো গ্রামের নাসির মোল্লা ও রনি যৌথভাবে রাজশাহী থেকে ডিসের সংযোগ এনে তানোরে ব্যবসা শুরু করে। অপর দিকে থানা ছাত্রদল সভাপতি আব্দুল মালেক মোহনপুর থানা এলাকায় যৌথভাবে ডিসের ব্যবসা করে।

বিগত কয়েক মাসে দুই পক্ষের লাইনম্যানদের মধ্যে তার কাটাকাটি নিয়ে কয়েক দফা ঝামেলা হয়। পরে উভয় পক্ষ বসে সমাধান হয়। সম্প্রতি নাসির মোল্লা তার ডিসের ব্যবসার তারসহ লাইন বিক্রি করে দেন মেয়র মিজানের কাছে। মেয়রের লোকজন নাসিরের বিক্রিত লাইনের সংযোগ তাদের লাইনের সংযোগ দিতে গেলে রনি বাধা দেয়। এক পর্যায়ে মালেক ও রনি মিজানের লোকজনের কাছ থেকে ডিসের লাইনের সরঞ্জাম থানায় জমা দেয়।

এ বিষয়ে মালেক বলেন, আমি মোহনপুর এলাকায় ডিসের ব্যবসা করি। তানোরে মধ্যে দিয়ে আমার লাইনের তার গেছে সেই লাইনের তার মিজানের লোকজন কেটে ফেলেছে। তাই মামলা করেছি।

অপর দিকে সদ্য যুবলীগের যোগদানকারী রনি বলেন, আগে ছাত্রদল করতাম এখন যুবলীগ করি। নাসির ও আমি যৌথ্যভাবে গত কয়েকমাস আগে রাজশাহীর লাইন তানোরে এনে ডিসের ব্যবসা শুরু করি। আমার অজান্তে নাসির মিজানের কাছে লাইন বিক্রি করে দেয়। আমার নামে ডিড রয়েছে। আমাকে ছাড়া কিভাবে লাইন বিক্রি হয়। মেয়র মিজানের লোকজন আমার লাইনের তার কেটে দিয়েছে। আমার লাইনের গ্রাহকদের অসুবিধার মধ্যে ফেলেছে। আমার কাছে ১০লাখ টাকা চাদা দাবি করেছে। তাই আমি বাদি হয়ে বৃহস্পতিবার মিজানসহ ৬জনের নামে থানায় মামলা করেছি।

তানোর থানা যুবদল সভাপতি ও তানোর পৌর মেয়র মিজানুর রহমান মিজান বলেন, থানা ছাত্রদল সভাপতি মালেক বিএনপি দল করে আওয়ামী লীগের দোসর হয়েছে। আমাকে হয়রানি করার জন্য নিজেসহ রনিকে দিয়ে মিথ্যা মামলা করেছে। নাসির আমার কাছে ডিডের মাধ্যমে ডিসের রাজশাহীর লাইন বিক্রি করে দিয়েছে।

তানোর থানা (ওসি) মির্জা আব্দুর সালাম বলেন, ডিসের লাইনের তার কাটা নিয়ে মেয়র মিজানের বিরুদ্ধে পৃথক দুটি মামলা হয়েছে। কেউ গ্রেফতার হয়নি।


মন্তব্য