kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


পাথরঘাটায় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে দুই বাল্যবিয়ে বন্ধ

পাথরঘাটা (বরগুনা) প্রতিনিধি    

১৩ অক্টোবর, ২০১৬ ১৪:১০



পাথরঘাটায় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে দুই বাল্যবিয়ে বন্ধ

বরগুনার পাথরঘাটায় গতকাল বুধবার রাতে দুইটি বাল্যবিয়ে বন্ধ করেছে প্রশাসন। একটি বিয়েতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি উদ্যোগ নেন।

অপরটি ভ্রাম্যমাণ আদালত সাজা দিয়ে বাল্যবিয়ে বন্ধ করেন। উভয় কনে স্কুলের শিক্ষার্থী।

পাথরঘাটা পৌরসভার সংরক্ষিত আসনের নারী কাউন্সিলর মুনিরা ইয়াসমিন খুশী বিয়ের সংবাদ জানতে পেরে বুধবার রাত ৮টায় বর কনের বাবা ও মাকে থানায় নিয়ে আসেন। তাদের বাড়ি পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডে। কনের বাবার নাম আবুল কালাম ও বরের বাবার নাম মো. কবির মিয়া। পুলিশের উপস্থিতিতে উভয় পক্ষ মুচলেকা দিয়ে বিয়ে বন্ধ করতে সম্মত হলে তাদেরকে ছেড়ে দেওয়া হয়। কনে পাথরঘাটা আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী।

অপরদিকে উপজেলার রূপধন গ্রামের মো. নেসার উদ্দিনের মেয়ে ও রূপধর আমেরিয়া মাধ্যমিক বিদ্যলয়ের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থীকে বরগুনা সদর উপজেলার চর মাইঠা গ্রামের মো. শহিদ খানের ছেলে মো. সুমনের সঙ্গে বিয়ের আয়োজন করা হয়। খবর পেয়ে পাথরঘাটার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নিবার্হী ম্যাজিস্ট্রেট মো. ইকবাল হোসেন গতকাল বুধবার রাত ৯টায় ঘটনাস্থলে গিয়ে কনের বাড়িতে বিয়ের আয়োজন দেখতে পান। এ সময় বিয়ের কাজে সহায়তা করার দায়ে কনের ফুফা ও বরগুনার চরমাইঠা গ্রামের গোলাম রাজ্জাক ও কনের চাচাতো ভাই রূপধন গ্রামের মো. রাসেলকে ১৫ দিনের কারাদণ্ড প্রদান করেন।

নিবার্হী ম্যাজিস্ট্রেট মো. ইকবাল হোসেন এ প্রতিনিধিকে জানান, বাল্যবিয়ে নিরোধ আইন ১৯২৯ সালের ৬ নম্বর ধারায় তাদের শাস্তি প্রদান করা হয়েছে। ‌এ সময় বর পক্ষ বিয়ে বাড়িতে এসে না পৌঁছায় এবং বাবা-মা ঘটনা টের পেয়ে স্থান ত্যাগ করেছিলেন বলে তাঁদেরকে পাওয়া যায়নি।

 


মন্তব্য