kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ভুল চিকিৎসায় মৃত্যুর ঘটনায় সোয়া লাখ টাকায় সমঝোতা!

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি    

১১ অক্টোবর, ২০১৬ ১৬:২১



ভুল চিকিৎসায় মৃত্যুর ঘটনায় সোয়া লাখ টাকায় সমঝোতা!

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর বাস টার্মিনাল এলাকায় মা ও শিশু প্রাইভেট হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় মাদ্রাসাছাত্র মো. সিয়ামের (১০) মৃত্যুর ঘটনায় পরিবারের সঙ্গে সমঝোতা করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। ‌এক লাখ ২০ হাজার টাকায় আজ মঙ্গলবার দুপুরে এ সমঝোতা হয় বলে জানা গেছে।

এর আগে গতকাল সোমবার রাত ৮টার দিকে ওই হাসপাতালে অপারেশন করার সময় সিয়ামের মৃত্যু হয়। সিয়াম রায়পুর পৌরসভার পশ্চিম মধুপুর এলাকার দুবাই প্রবাসী আমির হোসেনের ছেলে ও সোনাপুর দাখিল মাদ্রাসার ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র।

সিয়ামের মা পারুল বেগম ও খালা রিনা বেগম জানান, সিয়ামের পেটের ব্যাথা ও বমি হয়। এ জন্য গতকাল সোমবার দুপুরে তাকে ডাক্তার দেখাতে ওই হাসপাতালে আনেন তাঁরা। রাতে ওই হাসপাতালে চেম্বার করা ঢাকা থেকে আগত ডা. রুহুল আমিন ছেলের অ্যাপেন্ডিসাইটিস হয়েছে জানিয়ে অপারেশন করতে বলেন। এজন্য ১০ হাজার টাকায় চুক্তি করা হয়। সিয়ামের শারীরিক কোনো পরীক্ষা না করেই চিকিৎসক অপারেশন করেন। এ সময় চটফট করতে থাকে সে এবং একপর্যায়ে মারা যায়।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় লোকজন জানায়, মাদ্রাসা ছাত্রের মৃত্যুর খবরে তার উত্তেজিত স্বজনরা রাতেই হাসপাতালের সামনে জড়ো হন। তারা হামলা-ভাঙচুরের চেষ্টা করেন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। হাসপাতাল থেকে পরিচালক শহিদুল ইসলাম রানা ও হাসপাতাল ফার্মেসির তত্ত্বাবধায়ক আবদুল মালেককে আটক করে।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ রাতভর নিহতের পরিবারের সঙ্গে সমঝোতা করার চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়। দুপুর ১২টার দিকে নগদ ২০ হাজার টাকা ও এক লাখ টাকার একটি চেক দিয়ে সমঝোতা করা হয়। পরে তারা মরদেহ বাড়িতে নিয়ে যান।

সিয়ামের মা পারুল বেগম বলেন, "লাশের ময়নাতদন্ত ও বিভিন্ন ঝামেলা এড়াতে থানায় মামলা করা হয়নি। বিষয়টি আমরা সমাধান করে নিয়েছি। " এ ব্যাপারে রায়পুর থানার ওসি লোকমান হোসেন বলেন, "খবর পেয়ে ঘটনাস্থল গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। এ ঘটনায় থানায় কেউ লিখিত অভিযোগ করেননি। " তিনি বলেন, "টাকার বিনিময়ে সমঝোতার বিষয়টি আমি অবগত নই। "

 


মন্তব্য