kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


তানোরে ব্যরিষ্টার আমিনুলের পূজামণ্ডপ পরিদর্শন, যুবদল-ছাত্রদলের হাতাহাতি

তানোর প্রতিনিধি   

৯ অক্টোবর, ২০১৬ ২৩:৫৯



তানোরে ব্যরিষ্টার আমিনুলের পূজামণ্ডপ পরিদর্শন, যুবদল-ছাত্রদলের হাতাহাতি

রাজশাহীর তানোরে সাবেক ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী ব্যারিষ্টার আমিনুল হক আজ রবিবার বিভিন্ন পূজামণ্ডপ পরিদর্শন করেন। পূজামণ্ডপ পরিদর্শনকালে চেয়ারে বসা নিয়ে  উপজেলা যুবদল ও উপজেলা ছাত্রদলের মধ্যে  হাতাহাতি ও ধাক্কধাক্কির ঘটনা ঘটেছে।

এ সময় মন্দিরে উপস্থিত নারী-পুরুষ পূজারী ভক্তদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়লে সবাই এদিক ওদিক ছুটাছুটি শুরু করেন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিত নিয়ন্ত্রণে আনেন।
 
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, আজ রবিবার সন্ধ্যার পর সাবেক ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী ব্যারিষ্টার আমিনুল হক দূর্গা পূজা উপলক্ষে হিন্দু সম্প্রদায়ের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় ও সৌজন্য সাক্ষাতের জন্য দলীয় নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের নিয়ে তানোর গোল্লাপাড়া বাজার মন্দিরে যান। এ সময় ব্যারিষ্টার আমিনুল হকের সামনে চেয়ারে বসাকে কেন্দ্র করে উপজেলা যুবদল সভাপতি ও পৌর মেয়র মিজানসহ তার লোকদের সঙ্গে তানোর উপজেলা ছাত্রদল সভাপতি আব্দুল মালেক ও তার লোকদের ধাক্কাধাক্কি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে দুপক্ষের সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা শুরু হয়। এ সময় মন্দিরের প্যান্ডেলের ভিতরে ও বাহিরে অবস্থানরত হিন্দু সম্প্রদায়ের নারী-পুরুষের মধ্যে চরম আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। ফলে সবাই এদিক-সেদিক ছুটাছুটি শুরু করেন। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যাওয়ার আগেই ব্যারিষ্টার আমিনুল হক নিজেই পরিস্থিতি শান্ত করেন। পূজামণ্ডপ পরিদর্শনকালে তানোর-গোদাগাড়ীর নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
 
এ ব্যাপারে তানোর গোল্লাপাড়া বাজার মুন্দির কমিটির সাধারণ সম্পাদক মৃদুল কুমার ঘোষ বলেন, হিন্দু সম্প্রদায়ের সব চাইতে বড় ধর্মীয় উৎসব দূর্গা পূজা মন্দিরে ব্যারিষ্টার আমিনুল হক শুভেচ্ছা বিনিময়ের সময় ছাত্রদল ও যুবদলের লোকজনদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে।  

তানোর থানার ওসি মির্জা আব্দুর সালাম বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ যাওয়ার আগেই নেতাকর্মীরা সটকে পড়ে।


মন্তব্য