kalerkantho

শুক্রবার । ২ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


গাইবান্ধায় আবারও প্রতিমা ভাঙচুর, আটক ৪

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৯ অক্টোবর, ২০১৬ ২২:৩২



গাইবান্ধায় আবারও প্রতিমা ভাঙচুর, আটক ৪

গাইবান্ধায় আবারও প্রতিমা ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। রবিবার ভোরে গাইবান্ধা সদর উপজেলার লক্ষ্মীপুরহাটের কামারপাড়া সড়ক সংলগ্ন কালিমন্দিরে রক্ষিত কালি প্রতিমা ভাঙচুর করেছে দুর্বৃত্তরা।

এ ঘটনায় নিও জেএমবির চার সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ। আজ রবিবার বিকালে এক সংবাদ সম্মেলন এসব তথ্য জানান জেলা পুলিশ সুপার মো. আশরাফুল ইসলাম।

আটককৃতরা হলো- সুন্দরগঞ্জের ছাপড়হাটি ইউনিয়নের পশ্চিম ছাপড়হাটি খানপাড়া গ্রামের ইউসুফ খানের ছেলে ফয়সাল খান ফাগুন (১৭), একই গ্রামের আব্দুল ওয়াহাবের ছেলে নজরুল ইসলাম খান (৩৫), আব্দুল হামিদ মিয়ার ছেলে আশিকুল ইসলাম (১৬) ও আদর আলীর ছেলে শহিদ মিয়া (১১)।  

সংবাদ সম্মেলন জানানো হয়, আটককৃতরা মোটরসাইকেলে এসে ওই মন্দিরের কালি প্রতিমা ভেঙে সেখানে একটি নিও জেএমবির দায় স্বীকার সংক্রান্ত হাতে লেখা চিঠি রেখে পালিয়ে যায়। যাওয়ার পথে সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ছাপড়হাটি ইউনিয়নের মণ্ডলেরহাটে টহল পুলিশের হাতে ধরা পড়ে। এ সময় তাদের কাছ থেকে লাল রংয়ের একটি মোটরসাইকেল, হাতুর, দা, শাবল, রেঞ্জ, প্লাস, করাত, টর্চলাইট এবং তাদের হাতে লেখা নিও জেএমবির হুমকি প্রদান বিষয়ক একটি চিঠি উদ্ধার করে পুলিশ।

এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার আশরাফুল ইসলাম জানান, গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে জেলার আরও তিনটি মন্দিরে অগ্নিসংযোগ ও প্রতিমা ভাঙচুর করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে তারা সবগুলো মন্দিরে হামলার ঘটনা স্বীকার করেছে।

প্রসঙ্গত, গত ২২ সেপ্টেম্বর গভীর রাতে জেলার সাদুল্লাপুর উপজেলার কামারপাড়া ইউনিয়নের পূর্ব কেশালীডাঙ্গা (ঠাকুরবাড়ী) সার্বজনীন মন্দিরের একটি দুর্গা প্রতিমার ডান হাত ভেঙে ফেলে মন্দিরে হাতে লেখা একটি চিঠি রেখে যায় দুর্বৃত্তরা। এরপরে ৩ অক্টোবর দিবাগত গভীর রাতে সুন্দরগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম ছাপড়হাটি (কুশটারী) গ্রামের সুরজিত চন্দ্র বর্মনের বাড়ির মা ভবানী দুর্গা মন্দিরে প্রতিমা ভাঙচুর করা হয়। সর্বশেষ গতকাল শনিবার দিবাগত রাতে পশ্চিম ছাপড়হাটি ডুরামারি গ্রামে নরেন্দ্র চন্দ্র বর্মণের বাড়ির কালিমন্দির আগুন দিয়ে পুড়ে দেয় দুর্বৃত্তরা।


মন্তব্য