kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


চাঞ্চল্যকর তন্নী হত্যা মামলার পলাতক আসামি গ্রেপ্তার

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৮ অক্টোবর, ২০১৬ ২৩:৩৩



চাঞ্চল্যকর তন্নী হত্যা মামলার পলাতক আসামি গ্রেপ্তার

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার চাঞ্চল্যকর তন্নী হত্যা মামলার পলাতক আসামি রানু রায়কে(২২) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়া থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে হবিগঞ্জ ডিবি পুলিশ।

আজ শনিবার এই হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নিশাত সুলতানার আদালতে ১৬৪ ধারার জবানবন্দি দেন গ্রেপ্তারকৃত রানু রায়।

এ বিষয়ে আজ সন্ধ্যা ৭টায় হবিগঞ্জ পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার জয়দেব কুমার ভদ্র জানান, আটক রানু রায় তার জবানবন্দিতে উল্লেখ করে ঘটনার দিন (গত ২০ সেপ্টেম্বর) দুপুরে তার বাসায় গিয়ে দেখা করে তন্নী। তখন একাধিক প্রেমের সম্পর্ক নিয়ে রানু রায়ের সাথে তার বাকবিতণ্ডা হয়। ঘটনার কিছুদিন আগ থেকে তন্নীর একাধিক সম্পর্ক নিয়ে দুজনের মাঝে মান অভিমানের সৃষ্টি হয়। তন্নী সব অভিমান ভুলে অসুস্থ শরীর নিয়ে ২০ সেপ্টেম্বর অসুস্থ প্রেমিককে দেখতে তার বাড়িতে যায়। বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সেদিন দুজনের মাঝে দীর্ঘক্ষণ কথা হয়।

কথাবার্তার এক পর্যায়ে ফের উঠে আসে তন্নীর একাধিক সর্ম্পকের বিষয়টি। তন্নী একাধিক প্রেমের সম্পর্কের বিষয়টি অস্বীকার করলে রাগান্বিত হয়ে উঠে রানু রায়। এক পর্যায়ে সে গলাটিপে ধরে তন্নীর। এতে সে মারা যায়। তন্নী মারা গেলে ঘাবড়ে যায় সে। ভয় ও আতঙ্কে তন্নির নিথর দেহ লুকানোর চেষ্টা করে রানু। এ সময় ঘরে থাকা বস্তায় তন্নীর দেহকে ভরে রাতের অন্ধকারে বাড়ির পাশের একটি খালে ফেলে দেয়। এরপর সে ঢাকায় পালিয়ে যায় এবং একটি দোকানে কাজ নেয়।

পুলিশ সুপার আরো জানান, গতকাল শুক্রবার ডিবি পুলিশ মোবাইল নম্বর ট্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে তার অবস্থান জানতে পেরে ব্রাক্ষণবাড়িয়ায় অভিযান চালায় এবং ভাদুগড় বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে তাকে আটক করে নিয়ে আসে।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আসম সামসুর রহমান ভুইয়া, সহকারি পুলিশ সুপার সুদীপ্ত রায়, সাজিদুর রহমান, ডিবির ওসি আজমিরুজ্জামানসহ বিভিন্ন পুলিশ কর্মকর্তা।

প্রসঙ্গত, গত ২০ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় নবীগঞ্জের স্থানীয় জনগণ ব্রিজের নিচে একটি বস্তা পানিতে ভাসমান অবস্থায় দেখতে পায়। পরে বস্তাটি তীরে নিয়ে এসে খুলে এর ভিতরে এক অজ্ঞাত তরুণীর লাশ দেখে পুলিশকে খবর দেয় তারা। খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাশ উদ্ধার করে হবিগঞ্জ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। পরে ময়নাতদন্ত শেষে লাশ দাফন করা হয় এবং এই বিষয়ে একটি মামলা দায়ের করা হয়।


মন্তব্য