kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


‘সরকার দূর্গম পাহাড়েও ডিজিটাল শিক্ষার আলো জ্বেলেছে’

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার   

৬ অক্টোবর, ২০১৬ ১৮:৪৩



‘সরকার দূর্গম পাহাড়েও ডিজিটাল শিক্ষার আলো জ্বেলেছে’

বিশ্ব শিক্ষক দিবস উপলক্ষে আয়োজিত ৩ দিনব্যাপী শিক্ষকদের মিলন মেলা আজ বৃহষ্পতিবার কক্সবাজারে শেষ হয়েছে। গত মঙ্গলবার কক্সবাজার সাগর পাড়ের বিয়াম মিলনায়তনে সারা দেশ থেকে আগত ৫ শতাধিক সেরা শিক্ষকদের নিয়ে এই মিলন মেলা বসেছিল।

তিন দিনের এ কর্মসুচিতে শিক্ষকদের পেশাগত মানোন্নয়ন এবং তথ্য প্রযুক্তি নিয়ে কর্মশালা সহ বিভিন্ন কর্মসুচির আয়োজন করা হয়।

আজ বৃহষ্পতিবার কর্মসুচির শেষ দিনে প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী এ্যাডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে মন্ত্রী বলে-‘ বর্তমান সরকার দূর্গম পাহাড়েও শিক্ষা প্রতিষ্টানে ডিজিটাল কন্টেন্ট এর মাধ্যমে পাঠদানের মাধ্যমে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। সরকার সেই সাথে বৃদ্ধি করেছে শিক্ষকদের নানা সুযোগ সুবিধা। গুণগত মানসম্মত শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের সুযোগ বৃদ্ধির কারণে দেশের শিক্ষা ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন এসেছে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রনালয়, শিক্ষা মন্ত্রনালয় এবং কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের যৌথ উদ্দ্যোগে আয়োজিত বিশ্ব শিক্ষক দিবস ও শিক্ষক সম্মেলনের সমাপনি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি আরো বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ৩৬ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করে যে বিপ্লব শুরু করেছিলেন তার ধারাবাহিকতা বজায় রেখেছেন তারই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এক সাথে ২৬ হাজার ১৯৩ টি বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়কে সরকারী করণ সহ শিক্ষকদের তথ্য প্রযুক্তিতে সমৃদ্ধ করে দেশকে এগিয়ে নিয়েছেন। যার সুফল এখন দেশব্যাপি ভোগ করছে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এ-টুআই এর প্রকল্প পরিচালক অতিরিক্ত সচিব কবির বিন আনোয়ার বলেন, সারা দেশে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ডিজিটাল শ্রেণী কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ৩০ হাজার এর বেশী মাল্টিমিডিয়া শ্রেণীকক্ষ স্থাপন করা হয়েছে এবং ৫০ হাজারের ও বেশী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম শীঘ্রই চালু হবে।

অনুষ্ঠানের শেষে ২০১৪ ও ২০১৫ সালের মাল্টিমিডিয়া কন্টেন্ট প্রতিযোগিতায় সেরা কন্টেন্ট নির্মাতা হিসাবে ৩৫ জন শিক্ষক, তাদের সহযোগিতা করায় ৪০ জন প্রধান শিক্ষক এবং শিক্ষক বাতায়নের সপ্তাহের সেরা শিক্ষক হিসাবে ৭৭ জন, এবং মডেল কন্টেন্ট নির্মানে অসামান্য ৪১ জন শিক্ষককে বিভিন্ন বিভাগে পুরস্কৃত করা হয়।


মন্তব্য