kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


জমি নিয়ে বিরোধের জের

ভোলায় শ্রমিক লীগ নেতার নেতৃত্বে হামলা, লুটপাটের অভিযোগ

ভোলা প্রতিনিধি    

৬ অক্টোবর, ২০১৬ ১৫:১৩



ভোলায় শ্রমিক লীগ নেতার নেতৃত্বে হামলা, লুটপাটের অভিযোগ

ভোলার বোরহানউদ্দিনে শ্রমিক লীগ নেতার নেতৃত্বে দলের ক্যাডাররা এক বাড়িতে হামলা ভাঙচুর ও লুটপাট করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তারা অন্তত পাঁচ শতাধিক গাছ ভেঙে তছনছ করে ফেলেছে।

জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে গত মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার কাচিয়া ইউনিয়নের পশ্চিম ফূল কাচিয়া গ্রামে এ ঘটনার পর ওই এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে এ রিপোর্ট লেখার সময় উভয় পক্ষ মুখোমুখি অবস্থানে ছিল।    

ওই গ্রামের দিনমজুর আব্দুল্লাহ মাল জানান, তার তিন একর ১৯ শতাংশ জমি নিয়ে আব্দুল জব্বার কলেজ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বিরোধ চলছিল দীর্ঘদিন ধরে। ওই জমির বিরোধ নিষ্পত্তি নিয়ে ইতিপূর্বে কলেজ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সালিসি বৈঠক হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু নির্ধারিত দিনে কলেজ কর্তৃপক্ষ সেই সালিসি বৈঠকে উপস্থিত না হওয়ায় শেষ পর্যন্ত আর সালিসি বৈঠক হয়নি।

আব্দুল্লাহ মাল বলেন, "জমির বিরোধের জের ধরে গত মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি হারুন মাতব্বরের নেতৃত্বে আব্দুল জব্বার কলেজের কয়েকজন শিক্ষক-ছাত্রসহ অর্ধশতাধিক ক্যাডার লাঠিসোঁটা নিয়ে আমার বাড়িতে হামলা চালায়। তারা ব্যাপক ভাঙচুর চালিয়ে ঘরের আসবাবপত্র লুটপাট করে। আমার এক একর জমিতে রোপণ করা সুপারি গাছ, নারকেল গাছ, মেহগনি গাছের চারা, লাউ গাছসহ বিভিন্ন গাছ ভেঙে তছনছ করে দেয়। ভয়ে থানায় পর্যন্ত মামলা করতে সাহস পাচ্ছি না। আমি এখন অসহায় হয়ে পড়েছি। " তিনি আরো জানান, এ জমি নিয়ে কলেজ কর্তৃপক্ষকে বিবাদী করে তিনি নিজে ভোলার আদালতে একটি মামলা করেন। আদালত উভয় পক্ষকে স্থিতিশীল থাকার নির্দেশ দেন।

হামলা ভাঙচুর ও লুটপাটের অভিযোগ অস্বীকার করে উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি হারুন মাতব্বর বলেন, "কলেজ কর্তৃপক্ষের জমিতে আব্দুল্লাহ মাল অবৈধভাবে স্থাপনা নির্মাণ করেন। ওই স্থাপনা সরিয়ে ফেলার জন্য কলেজ কর্তৃপক্ষ তাকে বললেও তিনি শোনেননি। তাই কলেজের শিক্ষকরা ওই জমির দখল নিয়েছেন। আমি শুধু সঙ্গে ছিলাম। "

জমির বিরোধের কথা স্বীকার করে আব্দুল জব্বার কলেজের অধ্যক্ষ আবুল কাসেম আজ  বৃহস্পতিবার কালের কণ্ঠকে বলেন, "ওই জমির বিরোধের ঘটনায় মামলা হলে আদালত উভয় পক্ষকে স্থিতিশীল থাকার নির্দেশ দেন। কিন্তু আদালতের সেই নির্দেশ উপেক্ষা করে আব্দুল্লাহ মাল জমি দখলে নিতে জমিতে নতুন করে স্থাপনা নির্মাণ করেন এবং গাছ-গাছরা রোপণ করেন। এতে কলেজ কর্তৃপক্ষ মঙ্গলবার ওই জমির দখল নিতে পদক্ষেপ নিয়েছে।

এ ব্যাপারে বোরহানউদ্দিন থানার ডিউটি অফিসার এসআই আজিজুল ইসলাম বলেন, আব্দুল্লাহ মাল আব্দুল জব্বার কলেজের ভোগদখলীয় কিছু জমিতে অবৈধভাবে ঘর উত্তোলনের চেষ্টা করেছিলেন। এতে কলেজ কর্তৃপক্ষ বাধা প্রদান করলে আব্দুল্লাহর পক্ষের লোকজন তাদেরকে মারধর করেছে। এ ঘটনায় আজ বৃহস্পতিবার থানায় একটি মামলার প্রস্তুতি চলছে। কলেজের পক্ষে প্রভাষক রাখাল চন্দ্র মিস্ত্রী বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করবেন বলেও জানান তিনি। কাচিয়া ইউনিয়নের পশ্চিম ফূল কাচিয়া গ্রামে উত্তেজনা বিরাজ করছে। উভয় পক্ষ এখন মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছে।  

 


মন্তব্য