kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ধর্মপাশায় বৌলাই নৌপথে বেপরোয়া চাঁদাবাজী, মারধরে ১৫ মাঝি আহত

হাওরাঞ্চল প্রতিনিধি   

৫ অক্টোবর, ২০১৬ ১৯:৪৬



ধর্মপাশায় বৌলাই নৌপথে বেপরোয়া চাঁদাবাজী, মারধরে ১৫ মাঝি আহত

সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার বৌলাই নামক নৌপথে এমভি আল-নাঈম ও এমভি সুগন্ধা নামে দুই কার্গোর মাস্টারসহ ১০টি বাল্ক-হেড নৌকার অন্তত ১৫ জন মাঝিকে মারধর করে লক্ষাধিক টাকা ছিনিয়ে নিয়ে গেছে চাঁদাবাজরা। আজ বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলার বৌলাই নৌপথের শানবাড়ি ও কালামানিকিয়া নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় কার্গোর মাস্টার মো. শাজাহন ও তোফাজ্জল হোসেনসহ আহত ১৫ জন মাঝিকে উপজেলার জয়শ্রী বাজারে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। এদিকে এ ঘটনার খবর শুনা মাত্রই স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সঞ্জয় রায় চৌধুরী ও পাশের জামালগঞ্জ উপজেলার বেহেলী ইউপি চেয়ারম্যান অসীম কুমার তালুকদারের নেতৃত্বে পুলিশসহ এলাকার প্রায় ৫ শতাধিক লোক ২০টি ট্রলারযোগে ওই ঘটনাস্থলে পৌঁছে এক চাঁদাবাজকে আটক করতে পারলেও অন্যরা এ সময় দৌড়ে পালিয়ে যায়।

জানা গেছে, উপজেলার বৌলাই নামক নৌ-পথ দিয়ে পাশের তাহিরপুর উপজেলার বড়ছড়া ও ছারারগাঁও কয়লা সুল্ক ষ্টেশন থেকে কয়লা ও ফাজিলপুর থেকে বালু-পাথর বোঝাই করে প্রতিদিন শত-শত কার্গো ও বাল্ক-হেড নৌকা এই নৌপথ দিয়ে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করে থাকে। এরই সুযোগে উপজেলার জয়শ্রী ইউনিয়নের বানারশিপুর গ্রামের বাসিন্দা আনোয়ার মিয়া ও পাশের জামালগঞ্জ উপজেলার লালপুর গ্রামের শুক্কুর আলীর নেতৃত্বে ১৫-২০ জনের একটি চাঁদাবাজ চক্র দীর্ঘদিন ধরে এই নৌপথে  বেপরোয়াভাবে চাঁদাবাজী চালিয়ে আসছে। প্রতিদিন মতো চাঁদাবাজরা আজ বুধবারও ২-৩টি ছোট ট্রলার নিয়ে এই নৌপথের সানবাড়ি, কালামানিকিয়া, সুন্দরপুর, মুকশেদপুর ও নজরপুর নামক মোড়ে কয়লা, পাথর ও বালু বোঝাই কার্গো ও বাল্ক-হেড নৌকা আটকিয়ে প্রতিটি থেকে তারা ৪ থেকে ৫ হাজার টাকা করে চাঁদা আদায় করে আসছে। এ সময় কার্গোর মাস্টার ও নৌকার মাঝিরা তাদের চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে চাঁদাবাজরা এ সময় ক্ষিপ্ত হয়ে তাদেরকে লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারপিট করতে থাকে এবং নৌকার ভেতরে থাকা নগদ টাকা ও মূল্যবান জিনিসপত্র ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

আজ বুধবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে উপজেলার জয়শ্রী বাজারে চিকিৎসা নিতে আসা কার্গোর মাস্টারসহ আহত মাঝিরা জানান, বুধবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে তাহিরপুর উপজেলার টেকেরঘাট ও ফাজিলপুর থেকে কয়লা, পাথর ও বালু বোঝাই ২টি কার্গোসহ ৮টি বাল্ক-হেড নৌকা ছেড়ে আসে। বেলা সাড়ে বারোটার দিকে তাদের কার্গোসহ বাল্ক-হেড নৌকাগুলো বৌলাই নৌ-পথের সুন্দরপুর নামক মোড়ে আসা মাত্রই আনোয়ার মিয়া ও শুক্কুর আলীর নেতৃত্বে ১২-১৪ জন চাঁদাবাজ তাদের কার্গোসহ নৌকাগুলো  আটকিয়ে ৫ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। এতে তারা তাদেরকে প্রতি নৌকা থেকে ১ হাজার টাকা করে দিতে চাইলে চাঁদাবাজরা ক্ষিপ্ত হয়ে কার্গো ও নৌকায় উঠে মাঝিদেরকে মারধর করে লক্ষাধিক টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

মিল্লাদ পরিবহন নামে বাল্ক-হেড নৌকার আহত মাঝি জহির উদ্দিন বলেন, ওই স্থানটি দূর্গম এলাকা হওয়ায় আমরা  ভয়ে তাদেরকে দীর্ঘদিন ধরেই প্রতি নৌকায় ৩ হাজার টাকা করে চাঁদা দিয়ে আসছি।

এ প্রসঙ্গে জয়শ্রী ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান সঞ্জয় রায় চৌধুরী বলেন, আমি চেয়ারম্যান হওয়ার বহু আগে থেকেই এ নৌপথে চাঁদাবাজরা বেপরুয়াভাবে চাঁদাবাজি করে আসছে। আমি দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই বিষয়টি নিয়ে উপজেলার সমন্বয় কমিটির সভাসহ স্থানীয়ভাবেও জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে কাজ করে আসছি। আজও আমি এ ঘটনার খবর পাওয়া মাত্রই পুলিশসহ এলাকার প্রায় ৫ শতাধিক লোক নিয়ে ২০টি ট্রলারযোগে চাঁদাবাজদের ধাওয়া করে এক চাঁদাবাজকে আটক করা হয়।
 
এ ব্যাপারে ধর্মপাশা থানার ওসি মোঃ গোলাম কিবরিয়া বলেন, এ ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে মো. ইয়াছিন মিয়া (২৬) নামে এক চাঁদাবাজকে আটক করে নিয়ে আসলেও এ সময় অন্য চাঁদাবাজরা দৌঁড়ে পালিয়ে যায়। তবে এ নৌপথে চাঁদাবাজী বন্ধে পুলিশি অভিযান অব্যাহত থাকবে।


মন্তব্য