kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বরগুনায় উপজেলা চেয়ারম্যান ও প্যানেল মেয়রের বিরুদ্ধে মামলা

বরগুনা প্রতিনিধি    

২ অক্টোবর, ২০১৬ ১৯:৩৩



বরগুনায় উপজেলা চেয়ারম্যান ও প্যানেল মেয়রের বিরুদ্ধে মামলা

বরগুনার আমতলী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি জিএম দেলোয়ার এবং তার পুত্র আমতলী পৌরসভার প্যানেল মেয়র জিএম মুসার বিরুদ্ধে দ্রুত বিচার আইনে চাদাবাজি ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। আজ রবিবার সকালে আমতলী পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের একজন বাসিন্দা জয় চন্দ্র (২২) বরগুনার আইনশৃঙ্খলা বিঘ্নকারী অপরাধ দমন (দ্রুত বিচার) আদালতে এ মামলা দায়ের করেন।

আদালতের বিচারক মাসুম বিল্লাহ মামলাটি আমলে নিয়ে ঘটনার তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করার জন্য আমতলীর সহকারী কমিশনার ভূমিকে নির্দেশ দেন।

মামলার অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গত ২৬ সেপ্টেম্বর প্যানেল মেয়র জিএম মুসা তার সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে আমতলীর আখরাবাড়ি এলাকায় বাদী জয় চন্দ্রকে পিস্তল দেখিয়ে হত্যার হুমকি দিয়ে পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। পরদিন ২৭ সেপ্টেম্বর আমতলী থানায় একটি শালিস বৈঠক থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জিএম দেলোয়ারের নির্দেশে তার পুত্র আমতলী পৌরসভার প্যানেল মেয়র জিএম মুসা এ মামলার প্রথম স্বাক্ষী আমতলী পৌরসভার মেয়র মোঃ মতিয়ার রহমানকে হত্যার উদ্দেশে অবৈধ পিস্তল দিয়ে দুই রাউন্ড গুলি ছোড়ে, যা লক্ষভ্রস্ট হয়। এ সময় তারা দৌড়ে থানার ভিতর ঢুকে আশ্রয় নেন।

প্রসঙ্গত, এর আগে একটি শালিস বৈঠককে কেন্দ্র করে গত মঙ্গলবার রাতে বরগুনার আমতলী থানায় পৌর মেয়র ও প্যানেল মেয়রের দু’পক্ষের বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে উত্তেজিত হয়ে নিজের পিস্তল বের করে ফাঁকা গুলি ছোড়েন আমতলী পৌরসভার মেয়র মোঃ মতিয়ার রহমান। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে শুরু হয় ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া। সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে উভয় পক্ষের শত শত সমর্থক। আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে আমতলী থানা ও এর আশে পাশের এলাকায়। পরে পুলিশের লাঠি চার্জে নিয়ন্ত্রণে আসে পরিস্থিতি। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে গত বৃহস্পতিবার সকালে আমতলী পৌরসভার মেয়র মোঃ মতিয়ার রহমানের বিরুদ্ধে একটি হত্যা চেষ্টার অভিযোগ দায়ের করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ সামসুল হক গাজী। আমতলীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে এ অভিযোগ দায়ের করা হলে অভিযোগ আমলে নিয়ে বিচারক বৈজয়ন্ত বিশ্বাস ঘটনার তদন্ত করে আগামী ২৩ অক্টোবরের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করার জন্য আমতলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেন।

 


মন্তব্য