kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সাভারে পুলিশের সঙ্গে 'বন্দুকযুদ্ধে' যুবদল নেতা নিহত

নিজস্ব প্রতিবেদক, সাভার (ঢাকা)    

১ অক্টোবর, ২০১৬ ১৯:৩৯



সাভারে পুলিশের সঙ্গে 'বন্দুকযুদ্ধে' যুবদল নেতা নিহত

গ্রেপ্তারের পর ২৪ ঘণ্টা পার না হতেই ঢাকার অদূরে সাভারে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে এক যুবদল নেতা নিহত হয়েছেন। গতকাল শুক্রবার গভীর রাতে সাভারের বিরুলিয়া ইউনিয়নের কৃষিবিদ নার্সারির পাশে এ ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন সাভার মডেল থানার ওসি এস এম কামরুজ্জামান।

নিহত শাহ-আলম নয়ন (৪২) সাভার পৌরসভার মালঞ্চ আবাসিক এলাকার শহিদুল ইসলামের ছেলে। তিনি সাভার পৌর যুবদলের (এক অংশের) সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। এর আগে তিনি পৌর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদকও ছিলেন।

সাভার মডেল থানার ওসি এস এম কামরুজ্জামান বলেন, "নয়নের বিরুদ্ধে গাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে মানুষ হত্যা, পুলিশের ওপর হামলা, অবৈধ অস্ত্র ও মাদক চোরাচালান, অপহরণ-হত্যাসহ বিভিন্ন অভিযোগে অন্তত ১০টি মামলা রয়েছে। এ ছাড়া তিনি একটি মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি ছিলেন। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ একটি ওয়ান শুটার গান, দুই রাউন্ড গুলি, চারটি ছোরা এবং দুটি রাম দা উদ্ধার করেছে। "

নিহতের ছোট ভাই মাসুদ আলম লিটন জানান, বৃহস্পতিবার ভোররাতের দিকে নয়নকে ঢাকার মোহাম্মদপুরের ভাড়া বাসা থেকে গ্রেপ্তার করে সাভার থানায় নিয়ে আসেন সাভার মডেল থানার এসআই তন্ময় কুমার ও এএসআই আহসান হাবিব। তিনি জানান, নয়নকে গ্রেপ্তার করে আনার পর থানা হাজতে রাখা হয়। তবে পরিবারের কোনো সদস্যেকে নয়নের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ দেয়নি পুলিশ। গতকাল শুক্রবার রাত ৯টার দিকে একটি মাইক্রোবাসে করে তাকে থানা থেকে নিয়ে যেতে দেখেছেন তাদের পরিবারের অন্য সদস্য ও স্বজনরা।

ওসি বলেন, "নয়নকে গ্রেপ্তারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী পুলিশ শুক্রবার গভীর রাতে সাভারের বিরুলিয়া কৃষিবিদ নার্সারি এলাকায় যায় অস্ত্র উদ্ধারের জন্য। এ সময় আগে থেকে অবস্থান নিয়ে থাকা নয়নের সহযোগীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। এ সুযোগে নয়ন পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা চালালে  ক্রসফায়ারে পড়ে গুলিবিদ্ধ হন নয়ন। তাকে গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করে সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। " এ ঘটনায় সাভার মডেল থানায় একটি মামলা হয়েছে বলে জানান ওসি।

 


মন্তব্য