kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ছত্রাককে অলৌকিক প্রচার করে জামালপুরে ভণ্ডচক্রের ব্যবসা!

জামালপুর প্রতিনিধি   

৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৮:৪৮



ছত্রাককে অলৌকিক প্রচার করে জামালপুরে ভণ্ডচক্রের ব্যবসা!

ইসলামপুরের গাইবান্ধা ইউনিয়নের আগুনেরচর এলাকায় একটি আম গাছের গোড়া থেকে গজিয়ে উঠেছে হাত সদৃশ্য একটি মস জাতীয় উদ্ভিদ বা ছত্রাক। ওই ছত্রাককে অলৌকিক হাতের উত্থান এবং ওই হাত ভেজানো পানি খেলে যেকোন রোগ ভাল হয় বলে অপপ্রচার করছে স্থানীয় একটি ভণ্ড চক্র।

আর ওই ভণ্ডামীর ফাঁদে পা দিয়ে প্রতিদিন প্রতারিত হচ্ছেন শতশত মানুষ।

শুক্রবার দুপুরে সরেজমিন ঘুরে জানাগেছে, ইসলামপুরের গাইবান্ধা ইউনিয়নের আগুনেরচর এলাকায় মরহুম কিতাব আলীর পুকুর পাড়ে কয়েক বছর আগে কেটে ফেলা একটি আম গাছের গোড়ার নিচ থেকে মস জাতীয় দুটি ছত্রাক বেড়িয়েছে। ছত্রাক দুটির মধ্যে একটি দেখতে অনেকটাই মানুষের হাতের মতো। ওই হাত সদৃশ্য ছত্রাককে স্থানীয় একটি চক্র অলৌকিক হাতের উত্থান বলে অপপ্রচার করছে এবং অলৌকিক ওই হাত ভেজানো পানি খাইলে মানুষের রোগ ভাল হয় বলে অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে। তারা হাত সদৃশ্য ছত্রাকের জায়গাটি মাজারের রুপ দিয়ে সাজিয়ে সেখানে স্থানীয় নাপিতেরচর গ্রামের মোঃ পলাশ নামের একজন অর্ধ পাগলকে বসিয়ে তাকে দিয়ে আগন্তুকদের হাতে বোতল ভর্তি পানি দিচ্ছে এবং নগদ টাকা পয়সা আদায় করছে।

ওই অপপ্রচারে মুগ্ধ হয়ে কুসংস্কারাচ্ছন্ন শতশত মানুষ বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রতিদিন সেখানে এসে যে যার মতো করে টাকা দান করে বোতল ভরে পানি নিয়ে যাচ্ছে রোগ মুক্তির আশায়। আর কুসংস্কারাচ্ছন্ন ওইসব মানুষের আগমনকে আরও প্রাণবন্ত করতে স্থানীয় একটি চক্র সেখানে কিছু পাগলকে ডেকে এনে গান-বাজনা করাচ্ছে ও গঞ্জিকার আসর বসিয়েছে। এছাড়াও স্থানীয় ওই চক্রটি মৃত আম গাছের গুড়িসহ হাতের মত ছত্রাকটি লাল সালু কাপড় ও রং বেরঙের জড়ি দিয়ে পেঁচিয়ে সেটিকে জিন্দা পীরের হাতের মাজার বলে অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে।

এ ঘটনাকে ধর্মপ্রাণ মানুষজন শিরক ও বেদাত বললেও সেখানে উৎসুক দর্শনার্থী ও রোগ মুক্তির আশায় হাত সদৃশ ছত্রাক ভেজানো পানি নেওয়া কুসংস্কারাচ্ছন্ন মানুষের ভিড় দিন দিন আরও বাড়ছে। এব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন স্থানীয় স্কুল মাদ্রাসার শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও ধর্মপ্রাণ মুসুল্লিরা।

আগুনেরচর গ্রামর মৃত কিতাব আলীর পুত্র মালপ উদ্দিন(৩৪) জানান, তার বাবা কিতাব আলী পীরভক্ত লোক ছিলেন। তিনি গত তিন বছর আগে ইহলোক ত্যাগ করেছেন। কিতাব আলী জীবদ্দশায় কয়েকটি আমগাছ কেটে বিক্রি করে ওই টাকা বকশীগঞ্জের শাহীন খাজার দরবারে দিয়েছেন। তাই তাদের ওই আম গাছের গোড়া থেকে নাকি অলৌকিক হাতের উত্থান হয়েছে। আর ওই অলৌকিক হাত ভেজানো পানি কেহ যেকোন রোগমুক্তির জন্য নিয়ত করে খাইলে রোগ ভাল হয়। তাই প্রতিদিন শতশত লোকজন পানি নিতে আসছে এবং স্বেচ্ছায় যে যার মতো নগদ টাকা পয়সা দান করছে বলেও জানান মালপ উদ্দিন। তবে ওই পানি খেয়ে যারা ভাল হয়েছে এরুপ কোন লোকের সন্ধান চাইলে তিনি দুরদুরান্তরের কিছু মানুষের ঠিকানা বললেও তাদের সঠিক কোন সন্ধান দিতে পারেননি।

একই গ্রামের ষাটোর্ধ মোঃ দুলাল হোসেন জানান, অলৌকিক হাত ভেজানো পানি খেলে রোগ ভাল হয় এমন খবরে প্রতিদিন দুরদুরান্তর থেকে শতশত মানুষ ওই পানি নিতে আগুনেরচর গ্রামে আসছে এবং পানি নিয়ে যাচ্ছে। তবে কারও রোগ ভাল হয়েছে কিনা তা তিনি জানেন না বলে জানান।

এ ব্যাপারে স্থানীয় সাজেদা মাহমুদ উচ্চ বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক জামেরী হাসান জানান, তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে দেখেছেন একটি মৃত আম গাছের গোড়া থেকে হাত সদৃশ্য মস জাতীয় একটি উদ্ভিদ বা ছত্রাক গজিয়েছে। তাই নিয়ে এলাকার কিছু অসৎ প্রকৃতির লোক ভণ্ডামী শুরু করেছে।

একই বিদ্যালয়ের মৌলভী শিক্ষক বজলুর রহমান জানান, উদ্ভিদ বা ছত্রাক সমন্ধে ভ্রান্ত ধারণা থেকে স্থানীয় কিছু লোক অতি উৎসাহী হয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে যা ইসলামের দৃষ্টিতে শিরক ও বেদাত।

ইসলামপুরের গাইবান্ধা ইউপি চেয়ারম্যান মাকছুদুর রহমান আনছারী জানান, অলৌকিক হাত ভেজানো পানি খেলে রোগ ভাল হয় এখবরে প্রতিদিন শতশত মানুষ আগুনেরচর গ্রামে আসার খবর শুনেছি। তবে সেখানে তার যাওয়ার সময় হয়নি বলে তিনি জানিয়েছেন।

ইসলামপুর থানার ওসি দীন-ই আলম জানান, এ ব্যাপারে কেউ কোন অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


মন্তব্য