kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সৈয়দপুরে রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠক

সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি   

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২০:০১



সৈয়দপুরে রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠক

আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির ২৬তম সভা অনুষ্ঠিত হয়। সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় তত্ত্বাবধায়ক কার্যালয়ের সভা কক্ষে ওই সভার আয়োজন করা হয়।

এতে সভাপতিত্ব করেন রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত  সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি। সভায় রেলওয়ে কারখানা ও পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের চলমান প্রকল্প এবং প্রস্তাবিত প্রকল্পের অগ্রগতি পর্যালোচনা করবেন এবং দিক নির্দেশনামূলক প্রয়োজনীয় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

সভায় কমিটির সদস্য ছাড়াও রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব ও রেলওয়ের মহা-পরিচালকসহ পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সভা শেষে স্থায়ী কমিটির সদস্যরা ঢাকার উদ্দেশ্যে বিমানযোগে সৈয়দপুর ত্যাগ করেন।

এর  আগে রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী এমপির নেতৃত্বে কমিটির সদস্যরা সকালে বিমানযোগে সৈয়দপুরে আসেন।

পরে তারা দেশের বৃহত্তম সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানা বগি,ওয়েডিং, কামারশাল, ফাউন্ড্রি ,টুলরুম সপসহ গুরুত্বপূর্ন সপগুলো সরেজমিনে ঘুরে ঘুরে দেখেন ও উৎপাদন কার্যক্রম প্রত্যক্ষ করেন। এ সময় তারা কারখানার বিভিন্ন সর্পরকর্মকর্তা-শ্রমিকদের সঙ্গে সরাসরি কথা বলেন।

এ সময় রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি, রেলমন্ত্রী ও কমিটির সদস্য মুজিবুল হক, মো. মোসলেম উদ্দীন, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, মো. আলী আজগর, মো. সিরাজুল ইসলাম মোল্লা, মোহাম্মদ নোমান ও মো. ইয়াসিন আলী, নীলফামারী- ৪  (সৈয়দপুর-কিশোরগঞ্জ একাংশ) আসনের সংসদ সদস্য আলাহাজ্ব মো. শওকত চৌধুরী, রেলওয়ে মন্ত্রণালয়ের সচিব ফিরোজ মো. সালাউদ্দিন, মহাপরিচালক মো. আমজাদ হোসেনসহ রেলওয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা,স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও ট্রেড ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

পরে ১১০ একর জায়গায় জুড়ে গড়ে উঠা সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার একটি মডেল ডিএস কার্যালয়ের সামনে স্থাপন করে  কারখানার ২২টি সর্প এর কার্যক্রম সম্পর্কে ধারণা দেওয়া হয় কমিটির সদস্যদের। এটি উপস্থাপন করেন কারখানায় বিভাগীয় তত্ত্বাবধায়ক (ডিএস) নূর আহাম্মদ হোসেন। এরপর কারখানার জনবল, বিগত দিনের উৎপাদনসহ সার্বিক বিষয়ে প্রামাণ্য চিত্রের মাধ্যমে তুলে ধরা হয় রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদদ্যদের সামনে।

এদিকে, আজ বৃহস্পতিবার তিনি রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্যদের নিয়ে দেশের বৃহত্তম সৈয়দপুরে রেলওয়ে কারখানা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন রেলপথ মন্ত্রী মো. মুজিবুল হক এমপি।

এ সময় তিনি বলেন বিগত বিএনপি সরকারের আমলে রেলওয়ে ছিল একেবারে অবহেলিত ও উপেক্ষিত। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রেলওয়ের প্রতি বিশেষ নজর দিয়েছেন। রেলওয়ের উন্নয়নে গঠন করা হয়েছে রেলপথ মন্ত্রণালয়। হাতে নেওয়া হয়েছে ২০ বছর মেয়াদী অনেক উন্নয়ন প্রকল্প। দেশের প্রতি জেলাকে রেলওয়ে নেটওয়ার্কের আওতায় এনে প্রতিটি রেলপথে ডাবল রেললাইন চালু করা হবে। রেলওয়েকে ৪টি অঞ্চলে ভাগ করে উন্নয়ন কাজ করা হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, রেলওয়ের উন্নয়নে গৃহিত প্রকল্পগুলো শেষ হলে দেশের মানুষ শতভাগ রেলওয়ে সুবিধা ভোগ করবেন। তিনি রেলওয়েতে জনবল বিরাট সংকটের কথা স্বীকার করে বলেন, ইতোমধ্যে সাড়ে ৮ হাজার লোক নিয়োগ দেয়া হয়েছে। আগামী ২ বছরে সকল পদে লোক নিয়োগ করা হবে। পদ্মায় রেল সেতু নির্মাণ করা হচ্ছে। আগামীতে কর্ণফুলী নদীর ওপর রেল সেতু নিমাণ করা হবে। বঙ্গবন্ধু সেতুতে পৃথক রেল সেতু নির্মাণের উদ্যোগে নেয়া হয়েছে। সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানা রেলপথের অনেক সহায়ক উল্লেখ করে মন্ত্রী আরও বলেন ভারতীয় ঋণের অর্থায়নে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় বেশ কিছু প্রকল্প উন্নয়নমূলক গ্রহন করা হয়েছে।


মন্তব্য