kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


লক্ষ্মীপুরে আইন-শৃঙ্খলার অবনতি সত্ত্বেও প্রশাসনের সন্তোষ প্রকাশ

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি   

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৮:৪১



লক্ষ্মীপুরে আইন-শৃঙ্খলার অবনতি সত্ত্বেও প্রশাসনের সন্তোষ প্রকাশ

লক্ষ্মীপুর জেলা শহরে চুরি, ছিনতাই,নারী নির্যাতন ও মাদকসহ বিভিন্ন অপরাধ বেড়ে গেলেও বৃহস্পতিবার জেলা আইনশৃঙ্খলা সভায় সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার। আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবনতির কারণে খোদ আইনশৃঙ্খলা কমিটির সদস্য ও জজ কোর্টের সরকারি কৌসুলি  (পিপি) মো. জসিম উদ্দিন সভায় উপস্থিত ছিলেন না।

এছাড়াও ওই সভায় কমিটির উপদেষ্টা ৪ জন সাংসদ, জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, লক্ষ্মীপুর ও রায়পুর পৌরসভার মেয়র এবং লক্ষ্মীপুর প্রেসক্লাবের প্রতিনিধিসহ অনেক সদস্যই সভায় অনুপস্থিত ছিলেন।

এদিকে বৃহস্পতিবার সকালে অনুষ্ঠিত আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায়, সদস্য না হওয়ার অজুহাতে উপস্থিত সাংবাদিকদেরও আইনশৃঙ্খলা বিষয়ে বক্তব্য দেওয়ার সুযোগ দেওয়া হয়নি বলে জানিয়েছেন জেলায় কর্মরত সাংবাদিকরা।

জানা যায়, গত ৩ মাসে লক্ষ্মীপুর শহরে দিনে ও রাতে কমপক্ষে ২০টি চুরি সংঘটিত হয়। এ ছাড়াও জেলায় মাদকের ব্যবহার আশংকাজনকহারে বেড়ে যাওয়ার জেলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি চরম অবনতির অভিযোগ উঠেছে। অধিকাংশ ঘটনায় পুলিশের হয়রানির ভয়ে থানায় মামলা করেনি অনেকে ।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, গত ২২ সেপ্টেম্বর রাতে লক্ষ্মীপুর পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা ও লক্ষ্মীপুর জজ কোর্টের সরকারী কৌসুলি মো. জসিম উদ্দিনের বাসার কলাপসিবল ২ টি গেইটের তালা ভেঙ্গে ১ লাখ ৪০ হাজার মূল্যের (ডিসকভার) মটরসাইকেল চুরি করে নিয়ে যায়। কিন্তু মামলার ৮ দিন পার হয়ে গেলেও এখনো তা উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ।

গত ৪ সেপ্টেম্বর দুপুরে পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের ভৃঁইয়ার বাড়ির বাসিন্দা ও সময় টেলিভিশনের লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি মাহবুবুল ইসলাম ভূঁঞার ঘরের দরজা ভেঙ্গে নগদ ৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা ও ১৫ ভরি স্বর্ণাঅলংকার সহ প্রায় ১০ লাখ টাকা মালামাল নিয়ে যায়। পরের দিন ৫ সেপ্টেম্বর একই ওয়ার্ডের বিদ্যানিকেতন সড়কের আবদুল কাদের পাটোয়ারীর মুদি দোকানে প্রবেশ করে নগদ টাকাসহ ২০ হাজার টাকা মালামাল চুরি হয়।

ঐ এলাকার লক্ষ্মীপুর সরকারী মহিলা কলেজের প্রভাষক ফখরুল ইসলাম ও মো. মিজানুর রহমানের বাসায় ১৩ আগষ্ট দিনে দুপুরে দরজার তালা ভেঙ্গে নগদ ১ লাখ ৫ হাজার টাকা ও একটি ল্যাপটপসহ প্রায় ১ লাখ ৩০ হাজার টাকার মালামাল নিয়ে যায়। একই এলাকার নুর মোহাম্মদ ভান্ডারীর ভাড়াটিয়া আবুল বাশারের বাসায় চোরেরা ঢুকে নগদ টাকা ও স্বর্ণ অলংকারসহ প্রায় ৫০ হাজার টাকা মালামাল নিয়ে যায়।

এ ছাড়াও লক্ষ্মীপুর শহরের ৬নং ওয়ার্ড জেবি রোডের বাসিন্দা ও লক্ষ্মীপুর জজ কোর্টের মোঃ সেলিম পেশকারের বাসায় দিনে দুপুরে দরজার তালা ভেঙ্গে নগদ টাকা ও স্বর্ণ অলংকারসহ প্রায় ৩ লাখ টাকার মালামাল নিয়ে যায়।

একই ওয়ার্ডের ল’ইয়ার্স কলোনী থেকে জেলা যুবলীগের সদস্য শেখ হারুনের বাসার দরজা ভেঙ্গে নগদ টাকা ও স্বর্ণ অলংকারসহ প্রায় দেড় লাখ টাকার মালামাল নিয়ে যায়। একই এলাকার জেলা সমাজ সেবা অফিসের একটি মটরসাইকেলও চুরি হয়।

এছাড়া গত ২৩ আগষ্ট রাতে শহরের হাসপাতাল সড়কের শিউলি মঞ্জিলের নীচ তলা থেকে ডেইলি অবজারভার পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি মো. রবিউল ইসলাম খানের দেড় লাখ টাকার মূলের নতুন মটরসাইকেলটি নিয়ে যায় চোরেরা। এ ছাড়াও শহরের কালু হাজি সড়কের আনোয়ার মাষ্টারের বাসা ও  পিন্টুর বাসায়ও দুর্ধর্ষ চুরি সংঘটিত হয়।

শহরের ৮নং ওয়ার্ডের শরাফত উল্যা মাষ্টারের বাসার জানালার গ্রিল কেটে নগদ ২০ হাজার  টাকা ও ৫ ভরি স্বর্ণ অলংকার চুরি হয়। এ সকল ঘটনায় একাধিক মামলা দায়ের করা হলেও একটি ঘটনারও মালামাল উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ।

আইনশৃঙ্খলা সভা সূত্রে জানা গেছে, গত জুলাই মাসে লক্ষ্মীপুর জেলায় ডাকাতি ১টি, খুন ৩ টি, নারী ও শিশু নির্যাতন ৬টি, দস্যুতা ১টি, অপহরণ ১ টি, সিধেঁল চুরি ১ টি, মাদক ৪১ টি ও ৭ টি চুরির ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু প্রকৃত ঘটনার সংখ্যা অনেক বেশী বলে অনুসন্ধানে জানা গেছে।

এ ব্যাপারে লক্ষ্মীপুর জজ কোর্টের সরকারি কৌশলী ও আইনশৃঙ্খলা কমিটির সদস্য এ্যাডভোকেট জসিম উদ্দিন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আইনশৃঙ্খলা সভায় গিয়ে লাভ কি?। লক্ষ্মীপুরের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবনতি ঘটেছে। চুরি, ডাকাতি, মাদক, নারী নির্যাতনসহ নানান অপরাধ বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু এ বিষয়ে উল্লেখযোগ্য কোন পদক্ষেপ নেই।

লক্ষ্মীপুর পুলিশ সুপার আসম মাহাতাব উদ্দিন আইনশৃঙ্খলা সভায় বলেন, কিছু চুরির ঘটনা ঘটলেও সার্বিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভালো আছে।

সভায় জেলা প্রশাসক মো. জিল্লুর রহমান চৌধুরী আইনশৃঙ্খলা সার্বিক বিষয়ে সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, আমরা ভালো আছি।


মন্তব্য