kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


কেরানীগঞ্জে জুয়েলারি দোকানে ডাকাতির ঘটনায় মামলা

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি   

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২১:৫৬



কেরানীগঞ্জে জুয়েলারি দোকানে ডাকাতির ঘটনায় মামলা

কেরানীগঞ্জ মডেল থানাধীন জিনজিরা বাজার এলাকায় কালাচান প্লাজার গোবিন্দ জুয়েলার্সে ডাকাতির ঘটনার পর বাজার এলাকায় ব্যবসায়ীদের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। গতকাল সোমবার রাতের এ ঘটনার পর থেকে ওই এলাকাটি থমথমে ভাব রয়েছে।

 ডাকাতি সংঘঠিত হওয়ার পর থেকে অনেক দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এমনকি গোবিন্দ জুয়েলার্সের মালিক গোবিন্দ চন্দ্র বর্মন থানায় মামলা করতেও ভয় পাচ্ছিলেন। পরে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ফেরদাউস হোসেন ও ওসি (তদন্ত) আনসারি জিন্নৎ আলী পরবর্তিতে আর যাতে কোন ঘটনা না ঘটে বা আর অন্য কোন দোকানে না হয় সে রকম নিরাপত্তার আশ্বাস দেওয়ার পর আজ মঙ্গলবার বিকেলে থানায় এসে গোবিন্দ চন্দ্র বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন।
 
মামলার এজাহারে বাদী গোবিন্দ চন্দ্র বর্মন তার লিখিত বক্তব্যে বলেছেন, ৮/১০ জনের একটি ডাকাত দল সোমবার রাত সাড়ে আটটায় আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গোবিন্দ জুয়েলার্সে এসে কয়েকটি বোমা ফাটিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করিয়া আমার দোকানে প্রবেশ করে। এরপর ডাকাত দলটি দোকানের কর্মচারী তপন কুমার বর্মনকে “খানকির পোলারা বাহির হ” এবং নুর উদ্দিনকে “বাহির হ মাঙ্গের পুত” গালিগালাজ করে আমাকেসহ বাহির করে দিয়ে দোকানে থাকা সব মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।  
তিনি লুণ্ঠিত মালের বর্ণনাতে বলেছেন, ৭০ ভড়ি স্বর্ণালংকার, ৪০ ভড়ি রুপার অলংকার ও ক্যাশ থেকে নগদ ৩৬ হাজার টাকা এবং সিসি ক্যামেরার যন্ত্রাংশ লুট করে নিয়ে গেছে।

এদিকে এই ডাকাতির ঘটনায় এলাকাবাসীর মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। ঘটনার একদিন অতিবাহিত হতে চললেও পুলিশ কোন ডাকাতকে গ্রেপ্তার বা লুণ্ঠিত মালামালও উদ্ধার করতে পারেনি এখনো।

স্থানীয় বাসিন্দা শাওন আহমে বলেন, ঘটনাস্থল থেকে কেরানীগঞ্জ মডেল থানায় পায়ে হেটে পৌঁছাতে সময় লাগে মাত্র ৫ মিনিট। অথচ থানার পাশেই এতো বড় ঘটনা ঘটে গেল, পুলিশ কিছু করতে পারল না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই মার্কেটের এক ব্যবসায়ী বলেন, কিছুদিন আগেও জিনজিরা বাজার এলাকায় একটি নিরাপত্তা জোরদার করার জন্য সার্বক্ষণিক টহল পুলিশ থাকত। অথচ হঠাৎ করেই বাজার এলাকায় নিয়মিত পুলিশের টহল বন্ধ করে দেওয়া হয়। এ কারণেই এখানে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে।

এ প্রসঙ্গে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) ফেরদাউস হোসেন বলেন, এ ব্যাপারে কেরানীগঞ্জ মডেল থানায় একটি মামলা হয়েছে। মামলার তদন্ত চলছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বাজারে আমাদের একটি টহলপার্টি সব সময়ই থাকে। এক জায়গায় বসে থাকলে তো আর হয় না। অনেক সময় বাজার এলাকার আশপাশে কোন ঘটনা ঘটলে পার্টিটি সেখানে যেতে হয়।

এ ব্যাপারে কথা বলার জন্য ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার শাহ মিজান শফিউর রহমানের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ডাকাতির ঘটনায় তদন্ত চলছে। এখনো উল্লেখযোগ্য কোন তথ্য পাওয়া যায়নি।


মন্তব্য