kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


অনুপস্থিতির অভিযোগ

জলঢাকায় ২০ শিক্ষককে কারণ দর্শানোর নোটিশ ও বেতন কর্তনের নির্দেশ

জলঢাকা (নীলফামারী) প্রতিনিধি   

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৮:৫৮



জলঢাকায় ২০ শিক্ষককে কারণ দর্শানোর নোটিশ ও বেতন কর্তনের নির্দেশ

নীলফামারীর জলঢাকায় অনুপস্থিতির অভিযোগে ২০ জন শিক্ষককে কারণ দর্শানোর নোটিশসহ একদিনের বেতন কর্তনের নির্দেশ দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহ: রাশেদুল হক প্রধান।  

আজ শনিবার সকাল সাড়ে নয়টা থেকে ১১টা পর্যন্ত উপজেলার ৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আকস্মিক পরিদর্শনে আসেন ইউএনও রাশেদুল।

এ সময় তিনি টেংগনমারী বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাঁচজন, দক্ষিণ দেশীবাই উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল খালেকসহ ৯ জন, পাঠানপাড়া এম ইউ আলীম মাদ্রাসায় একজন, কালকেউট সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে একজন ও দক্ষিণ দেশীবাই মতিন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে একজন শিক্ষককে অনুপস্থিত দেখতে পান।  

এ ছাড়াও গত বৃহস্পতিবার জলঢাকা পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পরিদর্শনে এসে তিনজন শিক্ষককে অনুপস্থিত দেখতে পান উপজেলা নির্বাহী অফিসার। পরে তিনি নিজ কার্যালয়ে ফিরে উক্ত দপ্তর প্রধানদের ডেকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা হিসাবে কারণ দর্শানো নোটিশসহ এক দিনের বেতন কর্তনের নির্দেশ দেন।  

এ বিষয়ে দক্ষিণ দেশীবাই উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল খালেক জানান, 'আমি অসুস্থ। প্রশ্নের কাজে বাইরে ছিলাম। ' 
টেংগনমারী বহুমূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আশেকুর রহমান অনুপস্থিত শিক্ষক-শিক্ষকদের পক্ষে সাফাই গেয়ে বলেন, 'এটা অনুপস্থিত নয়, লেট প্রেজেন্ট।  

এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আশরাফ-উদ জামান সরকার বলেন, 'উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিদ্যালয়গুলো পরিদর্শনকালীন যেসব শিক্ষকদের অনুপস্থিত পেয়েছেন সেসব শিক্ষকদের বিরুদ্ধে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।  

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহ: রাশেদুল হক প্রধান জানান, 'উপজেলাটিতে শিক্ষার পরিবেশ ও মানোন্নয়নের জন্য আমি এমন আকস্মিক পরিদর্শনে বার বার যাবো। শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে শিক্ষকদেরকে আন্তরিক হতে হবে। '


মন্তব্য