kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


স্বামী আটক

দাউদকান্দিতে গলায় ফাঁস দিয়ে গৃহবধূর আত্মহনন

দাউদকান্দি (কুমিল্লা) প্রতিনিধি    

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৬:০৩



দাউদকান্দিতে গলায় ফাঁস দিয়ে গৃহবধূর আত্মহনন

কুমিল্লার দাউদকান্দিতে স্বামীর সঙ্গে পারিবারিক কলহের জের ধরে মর্জিনা আক্তার (২১) নামে এক গৃহবধূ অত্মহত্যা করেছেন। আজ শনিবার ভোররাতে উপজেলার গৌরীপুর বাজারের ভাড়াবাসায় এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ গৃহবধূর স্বামী সাইদুল ইসলামকে আটক করেছে।

মর্জিনা তিতাস উপজেলার গোপালপুর গ্রামের মাছ ব্যবসায়ী সাইদুল ইসলামের (২৬) স্ত্রী ও দাউদকান্দি উপজেলার তিনপাড়া গ্রামের বাচ্চু গোলজারের মেয়ে। তাদের দুই বছর বয়সের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে।

পুলিশ ও নিহতের স্বজনরা জানান, প্রেমের সম্পর্কের ভিত্তিতে তিন বছর আগে দাউদকান্দি উপজেলার তিনপাড়া গ্রামের বাচ্চু গোলজারের মেয়ে মর্জিনা আক্তারকে বিয়ে করেন মাছ ব্যবসায়ী সাইদুল ইসলাম। বিয়ের পর তাদের সংসার ভালোই চলছিল। গতকাল শুক্রবার রাতে সাইদুল ও তার স্ত্রী মর্জিনার মধ্যে পারিবারিক বিষয় নিয়ে ঝগড়া হয়। এরপর ভোররাতে সাইদুল ঘুম থেকে উঠে দেখেন পাশের কক্ষে জানালার পাশে খুঁটির সঙ্গে গলায় ফাঁস দিয়ে রশিতে ঝুলছেন। তার চিৎকার শুনে পাশের ঘরের লোকজন মর্জিনাকে উদ্ধার করে গৌরীপুর হাসপাতালে নিয়ে যান। এ সময় সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে পুলিশ মর্জিনার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লায় পাঠায়। এ ঘটনায় মর্জিনার বাবা বাচ্চু গোলজারের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সাইদুল ইসলামকে আটক করা হয়েছে।

নিহতের বাবা বাচ্চু গোলজার বলেন, "আমার মেয়ে ভালোবেশে আমাদের মতামত ছাড়াই সাইদুলকে বিয়ে করে। বিয়ের পর তাদের সংসার সুখের ছিল। তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে আমার মেয়ে আত্মহত্যা করেছে তা আমরা কখনও মেনে নিতে পারি না। আমরা এর সুষ্ঠু বিচার চাই। "

দাউদকান্দি মডেল থানার এসআই মো. মন্টু মোল্লা বলেন, "নিহতের স্বামী সাইদুল ইসলামের সঙ্গে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ঝগড়া হয়। মর্জিনার স্বামী তাকে কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে থাপ্পড় মারার কথার স্বীকার করেছেন। গৃহবধূর বাবার  অভিযোগে স্বামী সাইদুলকে আটক করা হয়েছে। তবে গৃহবধূর গলায় কালো দাগ রয়েছে। ময়নাতদন্তের পর আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। "    

 


মন্তব্য