kalerkantho


সংবাদ সম্মেলন

সৈয়দপুরে র‍্যাব পরিচয়ে বাড়িতে ঢুকে মারপিটের অভিযোগ

সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি    

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৭:০৬



সৈয়দপুরে র‍্যাব পরিচয়ে বাড়িতে ঢুকে মারপিটের অভিযোগ

নীলফামারীর সৈয়দপুরে র‍্যাব পরিচয়ে এক বাড়িতে ঢুকে পরিবারের সদস্যদের  এলোপাতাড়ি কিল-ঘুষি, বেদম মারপিট এবং মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে জীবননাশের হুমকি দিয়ে দুটি মোটরসাইকেল নিয়ে যাওয়া অভিযোগ করা হয়েছে। গৃহকর্তা মোন্নাফ আলী সরকার আজ বুধবার দুপুরে সৈয়দপুর উপজেলার ৪ নম্বর বোতলাগাড়ী ইউনিয়নের খোর্দ্দ বোতলাগাড়ীতে অবস্থিত তাঁর বাড়িতে এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে মোন্নাফ আলী সরকার জানান, পেশায় তিনি একজন সাধারণ ঘরের কৃষক। মূলত কৃষি চাষাবাদ করে পরিবার নিয়ে জীবন নির্বাহ করে আসছেন তিনি। গত ২৪ আগস্ট দিবাগত গভীর রাতে একটি মাইক্রোবাস ও তিনটি মোটরসাইকেলে করে ১৬/১৮জন অপরিচিতি ব্যক্তি তাঁর বাড়িতে আসেন। এ সময়  তিনি বাড়িতে ছিলেন না। তিনি তাঁর এক নিকটাত্মীয়ের বাড়িতে অবস্থান করছিলেন। আগন্তুকরা নিজেদের র‍্যাব পরিচয় দিয়ে জোরপূর্বক তাঁর বাড়িতে প্রবেশ করে। এ সময় তারা ঘরের আলমারিসহ সমস্ত বাড়িতে তল্লাশি চালায়। গৃহকর্তার ছেলে মাহমুদ হাসান রকি তাদের কাছে বাড়ি তল্লাশির কারণ জানতে চাইলে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে এলোপাতাড়ি কিল-ঘুষি ও বেদম মারপিট করে। এ সময় বাড়ির নারী সদস্যরা ছঁুটে আসলে তাঁদেরকেও মারধর করে।

একপর্যায়ে তাদের মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে প্রাণনাশের  হুমকি প্রদর্শন করা হয় বলে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে আরো অভিযোগ করা হয় র‍্যাব পরিচয়দানকারী ব্যক্তিরা চলে যাওয়ার প্রাক্কালে ওই বাড়িতে থাকা দুইটি মোটরসাইকেলও সঙ্গে করে নিয়ে যায়। এ ঘটনার পর গত কয়েক দিনে বাড়ির মালিক মোন্নাফ আলী সরকার নীলফামারী, রংপুর এবং  দিনাজপুর র‍্যাব অফিসে যোগাযোগ করলে ওইদিন রাতে র‍্যাব কোনো অভিযান চালায়নি বলে তাঁকে র‍্যাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়। পরে নীলফামারী পুলিশ সুপার (দপ্তর), নীলফামারী ও সৈয়দপুর থানায় বিষয়টি নিয়ে খোঁজখবর নিলে তারাও একই ধরনের জবাব দেন বাড়ির মালিককে। এ অবস্থায় মালিক মোন্নাফ আলী সরকার ঘটনার বিষয়ে সৈয়দপুর থানায় সাধারণ ডায়েরি করতে গেলে তারা তা গ্রহণ করেননি।

সংবাদ সম্মেলনে বাড়ির মালিক তাঁর লিখিত বক্তব্যে আরো জানান, পূর্ব শক্রতাবশত  ১৯৭৪ সালে তাঁর বাবা-মা ও এক ছোট বোনকে নির্মমভাবে হত্যা করে দুষ্কৃতকারীরা। সেই থেকে তাঁর শক্ররা তাঁর পেছনে উঠেপড়ে লেগেছে। তারা বিভিন্ন মামলা- মোকদ্দমায় জড়িয়ে তাকে হয়রানি করছে। এমনকি তাঁকে হত্যারও হুমকি দেওয়া হয়। এ অবস্থায় গৃহকর্তা মোন্নাফ আলী তাঁর ও পরিবারের সদস্যদের জীবন নিয়ে চরম নিরাপত্তাহীনতা দিন কাটাচ্ছেন বলে জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে বাড়ির মালিক মোন্নাফ আলী সরকার বিষয়টি তদন্তের জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও প্রধানমন্ত্রীর আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। সৈয়দপুর থানার ওসি মো. আমিরুল ইসলাম বলেন, "যেহেতু তাঁর অভিযোগটি সরাসরি র‍্যাবের বিরুদ্ধে তাই সে সময় তাঁকে বলা হয়েছিল তদন্ত করে জিডি রেজিস্ট্রারভুক্ত করা হবে। কিন্তু পরবর্তীতে তিনি আর থানায় আসেননি। "

 


মন্তব্য