kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


চামড়া পাচাররোধে সাতক্ষীরা সীমান্তে কঠোর বিজিবি

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি    

১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৬:৩৭



চামড়া পাচাররোধে সাতক্ষীরা সীমান্তে কঠোর বিজিবি

চামড়া পাচাররোধে সাতক্ষীরার ২৩৮ কিলোমিটার সীমান্তজুড়ে বিজিবির নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। ঈদুল আজহার পর কোনো চোরাকারবারি যাতে সাতক্ষীরা সীমান্ত দিয়ে ভারতে কোনো পশুর চামড়া পাচার করতে না পারে, সে জন্য সীমান্তে  কঠোর নজরদারিতে রয়েছে বিজিবি।

পাশাপাশি সীমান্তজুড়ে মোতায়েন করা হয়েছে সাদা পোশাকে গোয়েন্দা বাহিনীর নজরদারি।

ট্যানারি মালিকদের নির্ধারণ করা মূল্যে পশুর চামড়া বিক্রি করতে না পেরে চামড়া নিয়ে বিপাকে পড়েছেন মৌসুমি ব্যবসায়ীরা। এ কারণে সীমান্ত দিয়ে চামড়া পাচারের আশঙ্কা করছেন অনেকে।

সাতক্ষীরা ৩৮ বিজিবির ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মেজর সৈয়দ মোহাম্মদ লুকমান হামিদ পিপিএম জানান, সাতক্ষীরা সীমান্ত দিয়ে যাতে ভারতে চামড়া পাচার না হয় সে জন্য সাতক্ষীরায় বিজিবির দুটি ব্যাটালিয়নের আওতাধীন ১৩৮ কিলোমিটার স্থল ও ১০০ কিলোমিটার জলসীমার পুরো এলাকাজুড়ে কঠোর নজরদারি রয়েছে। কোনো চোরচালানি যাতে এপার থেকে ওপারে চামড়া পাচার করতে না পারে, সে জন্য বিজিবি সীমান্তজুড়ে বিশেষ সতর্কাবস্থাসহ গোয়েন্দা নজরদারিতে রয়েছে। এ ছাড়া সীমান্ত দিয়ে যেকোনো ধরনের পাচার ও জঙ্গি-সন্ত্রাস প্রতিরোধে বিজিবি সর্বদা প্রস্তুত রয়েছে বলে তিনি  জানান।

এদিকে, মৌসুমি ব্যবসায়ীরা জানান, প্রতিবছর কোরবানির আগে হুন্ডির মাধ্যমে ভারতীয় চামড়া ব্যবসায়ীরা এ দেশে ক্ষুদ্র চামড়া ব্যবসায়ীদের হাতে কোটি কোটি টাকা পাঠিয়ে থাকে। কোরবানির চামড়ায় তাদের আকর্ষণ বেশি থাকায় এবারও তারা চোরাপথে টাকা পাঠিয়েছে। জেলার সীমান্ত এলাকার মৌসুমি ব্যবসায়ীসহ হাট-বাজারের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা ভারতীয় ব্যবসায়ীদের টাকা নিয়ে সরকার নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশি দামে চামড়া কিনে মজুদ করে রেখেছে। সময় বুঝে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অসাধু সদস্যদের ম্যানেজ করে চামড়া ভারতে চলে যাবে।

মাঠপর্যায় থেকে সংগ্রহকৃত চামড়ায় এখন লবণ দিয়ে প্রক্রিয়াজাত করে রাখার কাজ চলছে।

 


মন্তব্য