kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সরকারবাড়ির ঈদগাহে নামাজ না পড়ার জের

তিতাসে সরকারি রাস্তা কেটে কয়েকটি পরিবারকে সমাজচ্যুত

দাউদকান্দি (কুমিল্লা) প্রতিনিধি    

১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৬:২০



তিতাসে সরকারি রাস্তা কেটে কয়েকটি পরিবারকে সমাজচ্যুত

কুমিল্লার তিতাসে জগতপুর গ্রামের সরকার বাড়ির ঈদগাহে ঈদের নামাজ না পড়ায় চকের বাড়ির দক্ষিণপাড়ার ১২টি পড়িবারকে বাড়ি থেকে বের হতে না দেওয়ার উদ্দেশ্যে সরকারি পাকা রাস্তা কেটে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির অভিযোগ পাওয়া গেছে।   প্রভাবশালী মহলটি তাদেরকে সমাজচ্যুত করার ঘোষণা দিয়ে ওই পরিবারগুলোর সদস্যদের তাদের বাড়ি থেকে বের হতে দিচ্ছে না।

ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে ভিটিকান্দি ইউনিয়নের জগতপুর গ্রামে রায়পুর-জাহপুর রাস্তায় চকেরবাড়ির দক্ষিণপাড়ার সংযোগ রাস্তায়। এ নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

এলাকাবাসী জানায়, উপজেলার ভিটিকান্দি গ্রামের সরকার বাড়ির শাহ আলম সরকার ও মোর্শেদ আলম সরকারের একছত্র আধিপত্যের কারণে দক্ষিণপাড়া চকের বাড়ির ১২টি পরিবার আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে। তাদের অত্যাচারে দক্ষিণপাড়ার লোকজন সিদ্ধান্ত নেন তারা সরকার বাড়ির ঈদগাঁহে ঈদের নামাজ না পড়ে নিজেদের মসজিদে ঈদের নামাজ আদায় করবেন। এ ঘটনার জের ধরে গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে দক্ষিণপাড়ার লোকজনের চলাচলের একমাত্র পাকা রাস্তা কেটে তাদেরকে বাড়ি থেকে বের হওয়ার রাস্তা বন্ধ করে দেন। পরিবারগুলোকে সমাজচ্যুত করারও ঘোষণা দেওয়া হয়। এ নিয়ে ভয়ে দক্ষিণপাড়ার লোকজন বাড়ি থেকে বের হচ্ছেন না বলে জানা গেছে।

দক্ষিণপাড়ার গ্রামের আমির হোসেন বলেন, "আমরা তাদের বাড়ি পাশে চলাচল করি বিধায় আমাদের দক্ষিণপাড়ার লোকজন তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে আমাদের ওপর নির্যাতন এবং যুবকদের যাকে পায় তাকে মারধর করে। তাদের অত্যাচার ও নির্যাতনের কারণে আমারা আলাদাভাবে ঈদের নামাজ আদায় করি। আমরা কেন সরকারবাড়ির ঈদগাহে নামাজ পড়ি নাই, তার জন্য আমাদের লোকজনদের যাকে পায় তাকেই মারধর করে। শেষ পর্যন্ত আমাদের চলাচলের একমাত্র পাকা রাস্তা কেটে বাড়ি থেকে বের হওয়ার রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছে তারা। তাদের ভয়ে প্রশাসন বা কারো কাছে মুখ খুলতে পারি না। "

সরকারবাড়ির নেতা মো. শাহ আলম বলেন, "আমাদের জায়গার ওপর দিয়ে তারা চলাচল করে। আবার আমাদের ১০০ বছরের ঈদের জামায়াত ভেঙে আলাদা জামাত করেছে। তার জন্য যুবসমাজ রাস্তায় বাধা দিয়েছে। তাদেরকে আর আমাদের সমাজে রাখার দরকার নেই। " স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. হিরন মিয়া বলেন, "সরকারি টাকায় রাস্তা করা হয়েছে। সরকারি রাস্তা কেটে তাদের চলাচল বন্ধ করা ঠিক হয়নি। সরকারবাড়ির লোকজন যা করেছে তা খুবই অন্যায় করেছে। "

তিতাস থানা ওসি মো. মনির হোসেন বলেন, "এ ব্যাপারে আমাদের নিকট কেউ কোনো অভিযোগ দেয়নি। আমি এলাকার চেয়ারম্যান ও মেম্বারের মাধ্যমে শুনে আইনি ব্যবস্থা নেব। "

 


মন্তব্য