kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুট ফাঁকা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৫:১৮



শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুট ফাঁকা

ঈদ শেষে দ্বিতীয় দিনেই কর্মস্থলে ফিরছে অনেকে। যানবাহনের কিছুটা চাপ থাকলেও নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই ছেড়ে যাচ্ছে ফেরিগুলো।

ভোগান্তির কথা মাথায় রেখে অনেকেই আগে ভাগেই কর্মস্থলে ফিরে যাচ্ছেন। স্পিডবোট ও লঞ্চ ঘাটে চাপ নেই যাত্রীদের। যাত্রী এবং যানবাহনের চাপ না থাকায় অনেকটা স্বস্তিতেই গন্তব্যস্থলে ফিরছেন যাত্রীরা। এছাড়া মুন্সীগঞ্জের ঢাকা চট্রগ্রাম মহাসড়কের গজারিয়া অংশে যানবাহনের চাপ নেই বলে স্বাভাবিক রয়েছে চলাচল।

শিমুলিয়া ঘাট কর্তৃপক্ষ জানায়, ৫টি রো রো ফেরিসহ ১৭টি ফেরি পারাপার করতে প্রস্তুত রয়েছে। কাওড়াকান্দি থেকে ঘাটে ফিরছে যানবাহনগুলো, শিমুলিয়া ঘাট এলাকায় যানবাহনের চাপ নেই বললেই চলে। সকাল থেকেই শিমুলিয়া ঘাট এলাকা যাত্রী শূন্য ছিল, বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে যানবাহনের সংখ্যা বাড়তে থাকে। কাওড়াকান্দি থেকে ছেড়ে আসা যানবাহনের সংখ্যাই বেশি। যাত্রীদের ভোগান্তি এবং পারাপার নির্বিঘ্ন রাখতে যাবতীয় প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে।

মাওয়া নৌ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মোশারফ হোসেন জানান, শিমুলিয়া ঘাট এলাকায় ১৫০ যানবাহন রয়েছে পারাপারের অপেক্ষায়। প্রাইভেট কারের সংখ্যাই বেশি রয়েছে। যাত্রীদের চাপ কম থাকলে পণ্যবাহী যানবাহনগুলোকে পারাপার করতে দেওয়া হচ্ছে। লঞ্চ ও স্পিডবোট ঘাটে যাত্রীদের চাপ নেই। যাত্রীসেবা নিশ্চিত করতে পুলিশ ঘাট এলাকায় অবস্থান করছে। শিমুলিয়া কাওড়াকান্দি নৌ রুটে ঈদ উদযাপন করে কর্মস্থলে ফেরা মানুষের চাপ এখনো পড়েনি।

গজারিয়া হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ কামরুজ্জামান রাজ বলেন, মহাসড়কে মাইক্রোবাসের চলাচল বেশি। কর্মস্থলে ফেরা মানুষের চাপ এখনো পড়তে শুরু করেনি। আশা করি ফেরার পথে ভোগান্তি যাতে কম হয় সেজন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। হাইওয়ে পুলিশ এবং জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে যাত্রীসেবা নিশ্চিত করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

 


মন্তব্য