kalerkantho


নীলফামারীতে পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত

নীলফামারী প্রতিনিধি   

১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৬:৫৩



নীলফামারীতে পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত

নীলফামারীতে যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপিত হয়েছে পবিত্র ঈদুল আজহা। এ উপলক্ষ্যে আজ মঙ্গলবার সকালে শহর গ্রামের বিভিন্ন ঈদের নামাজের জামাতে ছিল অসংখ্য মুসল্লীর ভীর।

পাশাপাশি প্রতিটি ঈদগাঁ মাঠে পুলিশ ও র‌্যাবের কঠোর নজরদারী ছিল।

সকাল সোয়া আটটায় নীলফামারী কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয়। মুসল্লিদের সাথে ঈদের নামাজ আদায় করেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নুর, জেলা প্রশাসক জাকীর হোসেন, জেলা পরিষদের প্রশাসক মমতাজুল হক, সিভিল সার্জন আব্দুল রশিদ, নীলফামারী চেম্বারের সভাপতি এস এম শফিকুল আলম, পুলিশ সুপার জাকির হোসেন খাঁন, পৌর মেয়র দেওয়ান কামাল আহমেদ, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুজার রহমান, জেলা ফার্টিলাইজার অ্যসোসিয়েশনের সভাপতি আব্দুল ওয়াহেদ সরকার, সিনিয়র সাংবাদিক তাহমিন হক ববী, মোশররফ হোসেন, মীর মাহমুদুল হাসান আস্তাকসহ সকল রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠন, সুধী সমাজের নেতৃবৃন্দ, সরকারী বেসরকারী দপ্তবের কর্মকর্তা কর্মচারীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার সাধারণ মানুষ। এখানে ইমামতি করেন নীলফামারী বড় মসজিদের খতিব মাওলানা মো. আশরাফুল হক।

এর আগে সকাল ৮টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয় পুলিশ লাইন ঈদগাঁ মাঠে। এখানে ঈদের নামাজ আদায় করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু মারুফ হোসাইন।  

এ ছাড়াও সকাল সাড়ে ৮টায় সার্কিট হাউস ঈদগাঁ, কুখাপাড়া ধনীপাড়া ঈদগাঁ, বাড়াইপাড়া নতুন জামে মসজিদ ঈদগাঁ, জোরদরগাঁ ঈদগাঁ ও মুন্সীপাড়া আহলে হাদিছ ঈদগাঁ মাঠে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। অপরদিকে সকাল ৮টা ৪৫ মিনিটে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয় জেলা শহরের গাছবাড়ি, পঞ্চপুকুর ঈদগাঁ ও কলেজ স্টেশন ঈদগাঁ মাঠে।

জেলার সবচেয়ে বড় জামাত অনুষ্ঠিত হয় ডোমার উপজেলার ভোগডাবুড়ি ইউনিয়নে সবদীগঞ্জ ঈদগাহ মাঠে। এখানে প্রায় ৬৫ হাজার মুসল্লি এক সাথে ঈদের নামাজ আদায় করেন।

ঈদের মোনাজাতে দেশ ও জাতির উন্নয়ন-অগ্রগতি কামনা করা হয়। সেই সাথে ইসলামের অপব্যাখা দিয়ে জঙ্গি সৃস্টি করে যারা মানুষ হত্যা করছে তাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহ্বান জানানো হয়।

এ ছাড়াও জেলার ডিমলা উপজেলার প্রধান ঈদগাহ মাঠে ঈদের নামাজ আদায় করেন এলাকার সংসদ সদস্য আফতাব উদ্দিন সরকার, জলঢাকায় একইভাবে সংসদ সদস্য অধ্যাপক গোলাম মোস্তফা, সৈয়দপুরে সংসদ সদস্য শওকত চৌধুরী।
 
এদিকে ঈদুল আজহা উপলক্ষে জেলা কারাগার, হাসপাতাল, এতিমখানায় উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হয়।


মন্তব্য