kalerkantho

মঙ্গলবার। ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ । ৯ ফাল্গুন ১৪২৩। ২৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮।


পাকশীর বিভাগীয় বানিজ্যিক কর্মকর্তার স্বেচ্ছাচারিতা

‘অনুমতি’ ছাড়া মেলেনা নীলসাগর এক্সপ্রেসের এসি টিকিট!

ভূবন রায় নিখিল, নীলফামারী প্রতিনিধি   

৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৮:৫৯



‘অনুমতি’ ছাড়া মেলেনা নীলসাগর এক্সপ্রেসের এসি টিকিট!

নীলসাগর এক্সপ্রেসে নীলফামারীর জন্য শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কামরার আসন বরাদ্দ থাকলেও সেটা চাইলেই কিনতে পারেন না যাত্রীরা। এজন্য পাকশীর বিভাগীয় বানিজ্যিক কর্মকর্তার ‘অনুমতি’ লাগে। এই নিয়ম বহির্ভূত অনুমতির বাধ্যবাধকতা জারি হওয়ায় বিপাকে পড়েছেন সাধারণ রেল যাত্রীরা।

জেলা শহরের উকিলপাড়ার বাসিন্দা মঞ্জুরুল ইসলাম বলেন, ঈদ পরবর্তী সময় ঢাকা যাওয়ার জন্য আমার দুইটি টিকেটের প্রয়োজন। এজন্য বৃহস্পতিবার দুপুরে নীলফামারী স্টেশনে যাই। স্টেশন মাস্টার ওবায়দুল ইসলাম আমাকে জানান শীততাপ নিয়ন্ত্রিত টিকেট নিতে বিভাগীয় বানিজ্যিক কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে। প্রায় দুই ঘন্টা ধরে ওই কর্মকর্তার মোবাইল নম্বরে ফোন করে তাকে পাইনি।

সেই সঙ্গে স্টেশন মাস্টার তার রেলওয়ের মোবাইল নম্বর থেকে একাধিকবার চেস্টা করে ব্যর্থ হন। শেষ পর্যন্ত কাঙ্খিত টিকিট পাননি মঞ্জুরুল।

একইভাবে টিকেট নিতে গিয়ে ফিরে এসেছেন জেলা শহরের মিজানুর রহমান, কাদিমুল হকসহ, বিজয় চক্রবর্তীসহ অনেকে। তারা অভিযোগ করে বলেন,‘আসন খালি থাকলেও এসি আসনের টিকেট দিচ্ছে না স্টেশন মাস্টার। ’

নীলফামারী স্টেশন মাস্টার ওবায়দুল ইসলাম বলেন, ‘ঈদের কারণে ১৫ থেকে ১৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত নীলসাগর এক্সপ্রেস টেনের ওই আসনের নিয়ন্ত্রণ আমার হাতে নেই। মৌখিক আদেশে এসব আসনের টিকেটের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছেন বিভাগীয় বানিজ্যিক কর্মকর্তা (পাকশী) আহসান উল্লাহ ভুইয়া। তিনি পাকশী থেকে যাকে টিকেট দিতে বলছেন আমি তাকেই টিকেট দিচ্ছি। ’

এ ব্যাপারে কথা বলার জন্য বিভাগীয় বানিজ্যিক কর্মকর্তা (পাকশী) আহসান উল্লা ভুইয়ার মুঠো ফোনে একাধিকবার চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

রেলওয়ের সূত্রমতে, নীলফামারীর চিলাহাটি থেকে ঢাকা চলাচলকারী নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনে জেলার চিলাহাটি, ডোমার, নীলফামারী এবং সৈয়দপুর রেলস্টেশনে স্টপেজ রয়েছে। এসব স্টেশনে শীততাপ নিয়ন্ত্রিত আসন চেয়ার ২৯টি এবং স্লিপিং বাথ ১০টি বরাদ্দ রয়েছে। ঈদ পরবর্তী যাত্রায় ওই আসনগুলোর নিয়ন্ত্রণ নিয়েছেন রেলওয়ের বিভাগীয় বানিজ্যিক কর্মকর্তা আহসান উল্লাহ ভূঁইয়া। এ কারণে আসন খালি থাকলেও টিকেট পাওয়া যাচ্ছে না স্টেশনে।


মন্তব্য