kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


দোহারে নদীতে ডুবে নিখোঁজ দুই শিক্ষার্থীর মধ্যে একজনের লাশ উদ্ধার

দোহার-নবাবগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি   

৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২১:০৬



দোহারে নদীতে ডুবে নিখোঁজ দুই শিক্ষার্থীর মধ্যে একজনের লাশ উদ্ধার

ঢাকার দোহারে চর লটাখোলা নদীতে গোসল করতে নেমে নিখোঁজ হয় বর্ষা আক্তার (৯) ও আরাফাত হোসেন (১০) নামে দুই মাদ্রাসাশিক্ষার্থী। পরে ঢাকা থেকে আসা দমকল বাহিনীর ডুবরি দল স্থানীয়দের সহায়তায় উদ্ধার তৎপরতা চালিয়ে সন্ধা সাড়ে ৬টার দিকে আরফাত হোসেনের লাশ উদ্ধার করে।

তবে এখনো নিখোঁজ রয়েছে বর্ষা। আজ বুধবার দুপুরে উপজেলার চর-লটাখোলা এলাকার ভাঙ্গা ব্রীজ সংলগ্ন এলাকার নদীতে এ ঘটনা ঘটে।

বর্ষা ও আরাফাত দুজনই দোহারের তানশীরুল ইসলাম ক্যাডেট মাদ্রাসার তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী। বর্ষা চর-লটাখোলা গ্রামের আব্দুস সোবহানের মেয়ে ও আরাফাত আব্দুস সালামের ছেলে বলে জানা গেছে। সম্পর্কে তারা চাচাতো ভাইবোন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বর্ষা, আরাফাত ও জিহাদ নামের একই পরিবারের তিন চাচাতো ভাই-বোন আজ বুধবার দুপুর ২টার দিকে বাড়ির পাশে চর-লটাখোলা ভাঙ্গা ব্রিজের নদীর ঘাটে দাদী মালেকা বানুর সাথে গোসল করতে নামে। এ সময় নদীর তীব্র স্রোতে বর্ষা ও আরাফাত তলিয়ে যায়। তবে জিহাদকে পানি থেকে উপরে উঠাতে সক্ষম হয় স্থানীয় এক যুবক। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের একটি দল ঘটনাস্থলে এসে স্থানীয়দের সহায়তায় শিশুদের উদ্ধারে চেষ্টা চালায়। পরে ঢাকা থেকে আসা দমকল বাহিনীর ডুবরিরা উদ্ধার অভিযানে নামেন। তিন ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে আরাফাতের লাশ উদ্ধার করে ডুবরিরা। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কে এম আল-আমীন ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধার কার্যক্রমের তদারকি করছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কে এম আল-আমীন জানান, আরাফাতের লাশ উদ্ধার করা হযেছে। বর্ষার সন্ধানে ডুবরিরা উদ্ধার অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে। নিখোঁজ শিশুটিকে উদ্ধারে সব ধরনের চেষ্টা চালানো হবে।


মন্তব্য