kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


নালিতাবাড়িতে দু’পক্ষের সংঘর্ষে একই পরিবারের পাঁচজনসহ আহত ১৫

শেরপুর প্রতিনিধি    

৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৮:১৯



নালিতাবাড়িতে দু’পক্ষের সংঘর্ষে একই পরিবারের পাঁচজনসহ আহত ১৫

শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে দু’পক্ষের সংঘর্ষে একই পরিবারের পাঁচজনসহ ১৫ জন আহত হয়েছেন। আজ বুধবার বেলা ১১টার দিকে কলসপাড় ইউনয়নের গোল্লার পাড় গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

 

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নালিতাবাড়ীর কলসপাড় ইউনিয়নের গোল্লারপাড় গ্রামের আব্দুস সামাদের সঙ্গে তার ভাই পবন আলী ও সরবেশ আলীর আড়াই একর জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। গতকাল মঙ্গলবার এ বিষয়ে ওই গ্রামে নালিতাবাড়ী পৌর সভার মেয়র আবু বকর সিদ্দিকীর উপস্থিতিতে একটি সালিশ বৈঠক হওয়ার কথা থাকলেও তা পিছিয়ে শনিবার ধার্য করা হয়। কিন্তু এর আগেই আজ বুধবার সকালে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেঁধে যায়।

সূত্র আরো জানায়, সংঘর্ষ আহতদের মধ্যে আটজনকে শেরপুর জেলা হাসপাতালে, পাঁচজনকে নালিতাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং দুজনকে  আশঙ্কাজনক অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শেরপুর জেলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীনরা হলো- আব্দুস সামাদের স্ত্রী সাহেরা খাতুন (৬৫), তার দুই ছেলে এরশাদ আলী (৩২), আরিফ মিয়া (২৮) ও দুই মেয়ে শিউলি খাতুন (৪০), স্বামী আজাহারুল ইসলাম, সমিরন (৪৫) স্বামী মোজাম্মেল হক এবং  জামাল উদ্দিনের ছেলে তোতা মিয়া (৪০), হাজি মজিদ উল্লাহ’র ছেলে শাহ আলী (৬০), সিরাজুল ইসলামের ছেলে জহুরুল ইসলাম (৩০)। এছাড়া নালিতাবাড়ি হাসপাতালে চিকিৎসাধীনরা হলো- চাঁন মিয়ার স্ত্রী রহিমা বেগম (৩৫), পবন আলীর স্ত্রী খুকি বেগম (৪৫), নূর মোহাম্মদের ছেলে সমশের আলী (৩০) এবং হাজি মজিদ উল্লাহ’র ছেলে অতশ আলী।

জেলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আজহারুল ইসলাম জানান, শালিশ বৈঠক না হওয়ায় আব্দুস সামাদের ছেলে-মেয়ে ও মেয়ের জামাইসহ অন্যান্য আত্মীয় স্বজন প্রবন আলীর বাড়ির সামনে দিয়ে বাড়ি ফিরছিল। এ সময় প্রবন আলী ও সরবেশ আলী গংরার ভাতিজা এরশাদ আলী রামদা ও দেশিয় ধারালো অস্ত্র নিয়ে তাদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় তারা প্রাণ ভয়ে দৌড়ে এদিক-সেদিক ছুটাছুটি ও ডাক চিৎকার করতে থাকে। তাদের চিৎকারে গ্রামবাসী এগিয়ে আসে এবং রক্তাত্ব  ও গুরুতর আহত অবস্থায় তাদেরকে শেরপুর জেলা হাসপাতালে ভর্তি করে। এ সময় আব্দুস সামাদের পক্ষে ১১ জন ও পবন আলীর পক্ষে চারজন আহত হয়।

এ ব্যাপারে নালিতাবাড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফসিউর রহমান জানান, হামলার ঘটনাটি জানা নাই। এছাড়া এখন পর্যন্ত কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


মন্তব্য