kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ফেনীতে একরাম হত্যা মামলায় রাজমিস্ত্রির সাক্ষ্যগ্রহণ

ফেনী প্রতিনিধি   

৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৯:২১



ফেনীতে একরাম হত্যা মামলায় রাজমিস্ত্রির সাক্ষ্যগ্রহণ

ফেনীর বহুল আলোচিত একরাম হত্যা মামলায় রাজমিস্ত্রি আব্দুল কাদেরের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়েছে। এ নিয়ে এ মামলায় মোট ১৭ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ করা হল।


 
আদালত সূত্রের বরাত দিয়ে সরকারী কৌসুলী (পিপি) অ্যাডভোকেট হাফেজ আহাম্মদ জানান, মামলার ৪১ জন আসামিকে মঙ্গলবার দুপুরে কড়া পাহারায় ফেনী জেলা ও দায়রা জজ দেওয়ান মোহাম্মদ সফিউল্যাহর আদালতে হাজির করা হয়। জামিনে থাকা পাঁচ আসামিও আদালতে হাজির ছিলেন। এদিন ফেনী সদরের বিরিঞ্চি এলাকার মৃত আব্দুল মুনাফের ছেলে আব্দুল কাদেরের সাক্ষ্যগ্রহন করা হয়।  

কাদের আদালতকে জানান, তিনি পেশায় রাজমিস্ত্রি। ঘটনার দিন তিনি ফেনী সদর উপজেলার কালিদহ ইউনিয়নের গোবিন্দপুর গ্রামে একটি বাড়িতে রাজমিস্ত্রির কাজ করছিলেন। ওইদিন দুপুরে তিনি শুনতে পান উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা একরাম মারা গেছেন। তিনি জানান, মামলার অভিযোগপত্রে তাকে সাক্ষী হিসেবে দেখানো হলেও তদন্ত চলাকালে তাকে পুলিশ কোন জিজ্ঞাসাবাদ করেনি।
 
অপরদিকে মামলার আরেক সাক্ষী ফেনী শহরের গোডাউন কোয়ার্টার এলাকার মৃধা বাড়ির জাভেদ এর এদিন সাক্ষী হিসেবে আদালতে হাজির হবার কথা থাকলেও তিনি অনুপস্থিত ছিলেন। এছাড়া জামিনে থাকা আসামি মো. শামীম ওরফে টপ শামীম এদিন অনুপস্থিত থাকায় তার পক্ষে তার আইনজীবি কামরুল হাসান সময় প্রার্থনা করেন। আদালত আগামী ২১ সেপ্টেম্বর মামলার পরবর্তী তারিখ নির্ধারণ করেন।  

এদিন সাক্ষীকে আদালতে জেরা করেন অ্যাডভোকেট মেজবাহউদ্দিন খাঁন, কামরুল হাসান ও আহসান কবির বেঙ্গল।
 
প্রসঙ্গত, একরাম চেয়ারম্যান হত্যা মামলার ৫৬ জন আসামির মধ্যে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোট ৪৬ জনকে গ্রেপ্তার করে। এদের মধ্যে ৩৫ জন ফেনী কারাগারে, পাঁচজন কুমিল্লা কারাগারে ও ছয়জন জামিনে রয়েছেন। আসামিদের মধ্যে টপ শামীম ছাড়া বাকিরা এদিন আদালতে হাজির ছিলেন।  

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের ২০ মে ফেনী সদরের একাডেমী এলাকার অধূনালুপ্ত বিলাসী সিনেমার সামনে ফুলগাজী উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি একরামুল হক একরামকে হত্যা করা হয়।


মন্তব্য