kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


হাজিরহাট উপকূল কলেজ

লক্ষ্মীপুরে প্রভাষক পদে নিয়োগবঞ্চিতদের সংবাদ সম্মেলন

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি    

৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৩:২২



লক্ষ্মীপুরে প্রভাষক পদে নিয়োগবঞ্চিতদের সংবাদ সম্মেলন

লক্ষ্মীপুরের কমলনগর উপজেলার হাজিরহাট উপকূল ডিগ্রি কলেজে প্রভাষক পদে মেধাতালিকায় উত্তীর্ণদের নিয়োগের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। আজ সোমবার সকাল ১১টার দিকে লক্ষ্মীপুরে স্থানীয় একটি দৈনিক পত্রিকা কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

প্রভাষক পদে মেধাতালিকায় উত্তীর্ণরা হলেন মো. আবদুল বাতেন (সমাজকর্ম), মো. মাহবুবের রহমান (ব্যবস্থাপনা), মো. হাবিবুল বাশার (হিসাববিজ্ঞান), ফাতেমা ফারভিন (ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি), আবদুর রহমান (সমাজবিজ্ঞান) এবং  জসীম উদ্দিন (ইংরেজি)।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, হাজিরহাট উপকূল ডিগ্রি কলেজে উচ্চমাধ্যমিক স্তরে শূন্যপদে বাংলা ও অর্থনীতি ও স্নাতক (পাস) শ্রেণির জন্য সৃষ্টপদে ইংরেজি, সমাজবিজ্ঞান, সমাজকর্ম, অর্থনীতি, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি, হিসাববিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ে প্রভাষক পদের জন্য প্রত্যেকটিতে সর্বনিম্ন তিনজন বা ততোধিক প্রার্থী গত ১২ অক্টোবর ২০১৫ সালে লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন। লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী প্রার্থীদের মধ্যে থেকে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান নির্বাচন করা হয়।

প্রতিযোগিতামূলক নিয়োগ পরীক্ষায় প্রভাষক পদে বিভিন্ন বিষয়ে প্রথম স্থান অধিকারীদের নিয়োগ দানের জন্য নিয়োগসংশ্লিষ্টরা সর্বম্মতভাবে সিদ্ধান্ত ও সুপারিশ প্রদান করেন। কলেজ কর্তৃপক্ষ কেবলমাত্র উচ্চমাধ্যমিক স্তরের শূন্যপদে বাংলা ও অর্থনীতি বিষয়ে প্রভাষক পদে দুজনকে নিয়োগ দেন। নিয়োগসংশ্লিষ্টদের সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে কোনো কারণ ছাড়াই কলেজ কর্তৃপক্ষ স্নাতক (পাস) শ্রেণির জন্য সৃষ্টপদে কাউকে নিয়োগ না দিয়ে চাকরিপ্রার্থীদের বঞ্চিত করেন।  

এ কারণে মেধাতালিকায় উত্তীর্ণ প্রার্থীরা উচ্চ আদালতে রিট আবেদন করেন। রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে শুনানি শেষে গত ২৫ জুলাই হাইকোর্ট রুল জারি করেন।
কমলনগর উপজেলার হাজিরহাট উপকূল ডিগ্রি কলেজে প্রভাষক পদে মেধাতালিকায় উত্তীর্ণ ওই ছয় প্রার্থীকে কেন নিয়োগ দেওয়া হবে না জানতে চেয়ে হাইকোর্ট এ রুল জারি করেন।

বিচারপতি মো. আশফাকুল ইসলাম ও বিচারপতি মো. খসরুজ্জামান সমন্বয়ে গঠিত সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট ডিভিশনের বেঞ্চটি এ রুল জারি করেন। সংশ্লিষ্ট শিক্ষা  মন্ত্রণালয়ের সচিব, মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর মহাপরিচালক, লক্ষ্মীপুর জেলা শিক্ষা  কর্মকর্তা, অধ্যক্ষ হাজিরহাট উপকূল ডিগ্রি কলেজ, সভাপতি হাজিরহাট উপকূল কলেজ গভর্নিং বডি এবং চেয়ারম্যান বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন অধিদপ্তরকে রুল জারির ২ সপ্তাহের মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়েছে। আবেদনকারীদের পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট ইসমাইল হোসেন।

 


মন্তব্য