kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


কিশোরগঞ্জে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে আরো একজনের মৃত্যু

নীলফামারী প্রতিনিধি   

৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৮:৩৫



কিশোরগঞ্জে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে আরো একজনের মৃত্যু

নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে পল্লী বিদ্যুতের তার ছিড়ে দুর্ঘটনায় আহতদের মধ্যে তাহেরা বেগম (৪৫) নামে আরো একজনের মৃত্যু হয়েছে। আজ রবিবার দুপুরে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

তিনি ওই গ্রামের মহুবার রহমানের স্ত্রী। এ নিয়ে ওই দুর্ঘটনায় মৃতের সংখ্যা দাড়াল পাঁচজনে।

পারিবারিক ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, ওই দুর্ঘটনায় ঘটনাস্থলেই নিহত হন জাবেদ আলীর ছেলে সাজেদুর রহমান (৩০)। অন্যদিকে অপর আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যান কফিল উদ্দিনের ছেলে তারিকুল ইসলাম (২৮)। এ ছাড়াও আহত আরো ১০ জনকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ২৩ আগস্ট সকালে নাইম (১৫) ও ২৭ আগস্ট মোসাহাব আলী (৬০) মারা যান। আজ রবিবার দুপুরে ফের চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাহেরা বেগম নামে এক নারী মারা যান।  

এও জানা গেছে, বর্তমানে আহতদের মধ্যে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন তিনজন। তারা হলেন- বিপ্লব হোসেন (৩০), রেজাউল করিম বাবু (২৬) ও মাজু (২২)। অন্য আহতরা সুস্থ্য হয়ে ঘরে ফিরেছেন।

তাহেরা বেগমের মৃত্যুর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন কিশোরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বজলুর রশীদ।

প্রসঙ্গত, গত ২১ আগষ্ট রাত সাড়ে সাতটার দিকে কিশোরগঞ্জ উপজেলার গারাগ্রাম ইউনিয়নের খামারগাড়া গ্রামের বিপ্লব হোসেনের ঘরের ওপর পল্লী বিদ্যুতের সরবরাহ লাইনের তার ছিড়ে পড়ে। এতে বিপ্লবের স্ত্রী রাশিদা বেগম বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ঘরের মেঝেতে পড়ে যান। এ সময় আগুন জ্বলতে থাকে। প্রতিবেশিরা পল্লী বিদ্যুৎ বিভাগের অভিযোগ কেন্দ্রে যোগাযোগ করে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ করান। এরপরে আহত রাশিদাকে উদ্ধার করে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দিয়ে আগুন নেভাতে ঘরের ভেতর ঢোকেন স্থানীয়রা। ঘটনার প্রায় আধা ঘণ্টা পর আবারো কয়েক সেকেণ্ডের জন্য বিদ্যুৎ চালু হলে ওই বাড়িতে অবস্থানকারী ১১ জন বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান সাজেদুর রহমান বাবু।

পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সূত্র মতে, ঘটনার পর দায়িত্বে অবহেলার কারণে সেখানকার টেপার হাট অভিযোগ কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ফারুক আহমেদ ও লাইনম্যান রুবেল হোসেনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। এ ছাড়াও ঘটনার পরদিন নীলফামারী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির মহা ব্যবস্থাপক ইনসের আলীকে সাময়িক বরখাস্ত করে উচ্চ পর্যায়ের তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড। তদন্ত শেষে ঢাকা ফিরে ওই কমিটি উপ-মহাব্যবস্থাপক মকছেমুল হাকিম ও প্রকৌশলী জাহাঙ্গীর আলমকেও সাময়িক বরখাস্ত করেন।


মন্তব্য