kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বাগাতিপাড়ায় বেইলি ব্রিজটি ঝুঁকিপূর্ণ, দুর্ঘটনার আশঙ্কা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৪:৫০



বাগাতিপাড়ায় বেইলি ব্রিজটি ঝুঁকিপূর্ণ, দুর্ঘটনার আশঙ্কা

নাটোর বাগাতিপাড়া উপজেলার গালিমপুর বড়ালনদীর ওপর নির্মিত বেইলি ব্রিজটি ক্রমেই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ছে। ব্রিজটিতে ভারী যানবহন চলাচল করায় বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা করছে এলাকাবাসী।

কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা এর জন্য দায়ী বলে মনে করছেন অনেকেই।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার গালিমপুর বড়াল নদীর ওপর নির্মিত বেইলি ব্রিজটি ১৯৯৫ সলের ১২ ফেব্রুয়ারি সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়। ২০০৫ সালের মে মাসে কাল বৈশাখী ঝড়ে ব্রিজটি উত্তর থেকে দক্ষিণ দিকে হেলে পড়ায় এক সপ্তাহ ধরে সব ধরনের যোগাযোগ বন্ধ থাকে। পরে কর্তৃপক্ষ ব্রিজটি সংস্কার করে। ওই বছরই সড়ক ও জনপথ বিভাগ ব্রিজেটিতে ২০ টনের অধিক ভারবহনকারী যানবাহন চলাচল নিষেধ করে ব্রিজের পূর্ব পাশে সাইনবোর্ড টাঙানো হয়।

২০১৩ সালের দিকে ব্রিজের পূর্ব অংশে বৃষ্টির পানি জমে মরিচা ধরে প্লেট নষ্ট হয়ে যায়। এতে ব্রিজটি আবারো যান চলাচলে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে যায়। কর্তৃপক্ষ নষ্ট প্লেটগুলো সংস্কার করলেও একই বছর ব্রিজটিতে ১০ টনের অধিক ভারবহনকারী যানবহন চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়ে আবারো সাইনবোর্ড টাঙানো হয়। এখন যেমন চোখে পড়ে না সাইনবোর্ডগুলো তেমনই নিয়ম মানছে না যানবাহনের চালকরা।

বর্তমানে ব্রিজের পাটাতনের অনেক প্লেট মরিচা ধরে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। পশ্চিম পাশে ব্রিজের মুখে দুই পাশের প্রাচীর ভেঙে নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে, তার ওপর অধিক মালামাল বহনকারী ট্রাক, বালিভর্তি ট্রাক্টরসহ বিভিন্ন যানবাহন প্রতিদিন চলাচল করছে। ফলে ব্রিজটি যে বড় ধরনের দুর্ঘটনায় পড়তে যাচ্ছে, সেটা সরেজমিনে দেখলেই বোঝা যায়। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ক্ষতিগ্রস্ত ব্রিজটি সংস্কার করে নিরাপদে যানবাহন চলাচল নিশ্চিত করার জোর দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

নাটোর সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী জিকরুল ইসলাম মুঠোফোনে এ প্রতিবেদককে দুই-তিন দিনের মধ্যে বড়াল নদীর ওপর নির্মিত বেইলি ব্রিজটির ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানান।

 


মন্তব্য