kalerkantho


শ্রমিক ছাঁটাই বন্ধসহ বেতন-বোনাসের দাবিতে আশুলিয়ায় সমাবেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক, সাভার (ঢাকা)    

২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৮:১২



শ্রমিক ছাঁটাই বন্ধসহ বেতন-বোনাসের দাবিতে আশুলিয়ায় সমাবেশ

ঈদের আগে আগস্ট মাসের বকেয়া বেতন ও ঈদ বোনাস প্রদান এবং শ্রমিক ছাঁটাই-নির্যাতন বন্ধ করে ছাঁটাইকৃত শ্রমিকদের বকেয়া পাওনাদি পরিশোধের দাবিতে ঢাকার আশুলিয়ায় মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ শুক্রবার বিকেলে গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্টের উদ্যোগে আশুলিয়ার জামগড়া ফ্যান্টাসি কিংডমের সামনে এ মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট, সাভার-আশুলিয়া-ধামরাই শিল্পাঞ্চল কমিটির সভাপতি সৌমিত্র কুমার দাশের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি খালেকুজ্জামান লিপন, সাভার-আশুলিয়া আঞ্চলিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান, আশুলিয়া থানা কমিটির সভপতি মাফিজুল ইসলাম শামীম, সহসভাপতি মিলন মিয়া, মহিলা সম্পাদক শাহনাজ আক্তার, আবুল কালাম, সাঈদ মিয়া, আনোয়ার সিকদার প্রমুখ।

ঈদের আগেই শ্রমিকদের বকেয়া বেতনভাতা ও ঈদ বোনাস প্রদান, শ্রমিক ছাঁটাই বন্ধ, ছাঁটাইকৃত শ্রমিকদের ক্ষতিপূরণ প্রদানসহ মাস্ট নিটওয়্যার লিমিটেড, গ্যালাক্সি ওয়াশিং প্লান্ট লিমিটেড, অ্যাডর্ন নিট ওয়্যার লিমিটেডসহ সব পোশাক কারখানার শ্রমিকদের বকেয়া বেতন-ভাতা অবিলম্বে পরিশোধের দাবি জানিয়ে বক্তারা বলেন, আর কিছুদিন পরই কোরবানির ঈদ। এই ঈদে শ্রমিকরা তাদের পরিবার-পরিজনের সঙ্গে আদৌ ঈদ উদযাপন করতে পারবে কিনা- তা নিয়ে ইতিমধ্যে সন্দেহ দেখা দিয়েছে। ইতিমধ্যে আশুলিয়ায় মাস্ট নিটওয়্যার লিমিটেড, গণকবাড়ির গ্যালাক্সি ওয়াশিং প্লান্ট লিমিটেড, পলাশবাড়ি পল্লীবিদ্যুৎ এলাকার আরএন ফ্যাশন, সাভারের অ্যাডর্ন নিটওয়্যার, কলমার সিপিএম নিট কম্পোজিটসহ আরো কয়েকটি কারখানার শ্রমিকরা এখনো জুলাই মাসের বেতন-ভাতা পাননি। সেখানে আগস্ট মাসের বেতন ও ঈদ বোনাস প্রাপ্তি শ্রমিকদের কাছে দুঃস্বপ্নের মতো মনে হচ্ছে।

নেতৃবৃন্দ বলেন, সাভার-আশুলিয়া শিল্পাঞ্চলে এরকম প্রায় ৫০টির মতো কারখানা রয়েছে যেখানে কর্মরত হাজার হাজার শ্রমিকরা ঈদের আগে বেতন-বোনাস প্রাপ্তি নিয়ে সংশয়ে রয়েছেন। তাই অবিলম্বে সরকার-প্রশাসন ও বিজিএমইএকে এ ব্যাপারে দ্রুত ব্যবস্থা নিয়ে শ্রমিকদের পাওনা আদায়ে কার্যকর উদ্যোগ নিতে হবে। নতুবা শিল্পাঞ্চলে কোনো বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি তৈরি হলে এর দায়ভার মালিক-প্রশাসনকেই নিতে হবে বলে হুঁশিয়ারি প্রদান করা হয়।

সমাবেশ শেষে একটি মিছিল জামগড়া এলাকা প্রদক্ষিণ করে স্থানীয় ছয়তলা এলাকায় গিয়ে শেষ হয়।


মন্তব্য