kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বোরহানউদ্দিন অগ্রণী ব্যাংকে গ্রাহক হয়রানির অভিযোগ

ভোলা প্রতিনিধি   

১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৮:৫০



বোরহানউদ্দিন অগ্রণী ব্যাংকে গ্রাহক হয়রানির অভিযোগ

ভোলার বোরহানউদ্দিনে অগ্রণী ব্যাংকে টাকা তুলতে গ্রাহকরা চরম হয়রানির শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সাধারণ গ্রাহকদের অভিযোগ, অগ্রণী ব্যাংক বোরহানউদ্দিন শাখায় টাকা তুলতে গেলে ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা গ্রাহকদের টাকা না দিয়ে ঘন্টার পর ঘন্টা দাঁড় করিয়ে রাখেন।

এছাড়া অনেক সময় বেশী টাকা তুলতে গেলে সামান্য সুতোর অজুহাতে টাকা দিতে অপরাগতা প্রকাশ করেন। ব্যাংক কর্মকর্তা-কর্মচারিরা সাধারণ গ্রাহকদের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন বলেও অভিযোগ রয়েছে। পাশাপাশি নিয়ম বহির্ভূতভাবে বহিরাগতরা ব্যাংকের ভেতরে অবাধ যাতায়াত করেন। এতে নিরাপত্তা নিয়েও গ্রাহকদের মনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। গ্রাহক হয়রানির কারনে অগ্রণী ব্যাংক বোরহানউদ্দিন শাখা থেকে হিসাব বন্ধ করার চিন্তা ভাবনাও করেছেন ব্যাংকের অনেক গ্রাহক।

গ্রাহকদের অভিযোগের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার দুপুরে অগ্রণী ব্যাংক বোরহানউদ্দিন শাখায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ব্যাংকের ক্যাশের সামনে দাড়িয়ে রয়েছেন ১০-১২ জন গ্রাহক। ব্যাংকের ক্যাশিয়ারের রুমের ভেতরে দেখা গেছে আরো ১০-১২ জনের জটলা। বিশৃঙ্খল পরিবেশ। তারা চেক দেওয়ার পরেও টাকা না পেয়ে ভেতরে টাকা পাওয়ার জন্য হৈ-চৈ করছেন। এ সময় ব্যাংকের এক কর্মচারীকে ক্যাশিয়ারের রুম থেকে গ্রাহকদের বের করে দিতে দেখা যায়।

ব্যাংকের ব্যবস্থাপকের সামনেই এসব ঘটনা ঘটছে। পরিবেশ দেখে মনে হয় এটা কোন ব্যাংক নয়, যেন মাছের বাজার। প্রতিষ্ঠানের ভেতরে হৈ-চৈ শোনার পরেও ব্যবস্থাপক সাইয়েদুল ইসলামকে দেখা গেছে তার কাঁচঘেরা কক্ষে বসে থাকতে। এ সময় কথা হয় ব্যাংকে আসা এক গ্রাহক গৌরাঙ্গ চন্দ্র দের সঙ্গে।

তিনি বলেন, আমি টাকা তোলার জন্য প্রায় এক ঘন্টা আগে দুপুর ১২টার দিকে ব্যাংকে এসেছি। কিন্তু এক ঘন্টায়ও টাকা দিচ্ছেনা ব্যাংক কর্তৃপক্ষ।

প্রায় একই অভিযোগ করেন ফিরোজ আলম চৌধুরী নামে অপর এক গ্রাহক। তিনি অভিযোগ করে বলেন, ৭ লাখ ৮ হাজার টাকার চেক বুধবার ব্যাংকে দিলেও টাকা দেয়নি ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। গত দুই দিন ধরে ব্যাংক কর্মকর্তা কর্তৃক হয়রানির শিকার হচ্ছেন তিনি। তিনি বলেন, ব্যাংক কর্তৃপক্ষ তাকে জানায়, তার স্বাক্ষর মিলছেনা বলে টাকা দিচ্ছেনা। পরবর্তীতে ব্যাংক কর্তৃপক্ষের সামনে পূনরায় স্বাক্ষর দেওয়ার পরেও টাকা দেয়নি। শেষ পর্যন্ত সেই চেকটি নষ্ট হয়ে যায়। ফলে বাধ্য হয়ে ওই গ্রাহক বৃহস্পতিবার দুপুরে নতুন একটি চেকের মাধ্যমে টাকা উত্তোলন করেন।

ব্যাংকের বেশ কয়েকজন গ্রাহকের সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, এ ব্যাংকে অধিকাংশ গ্রাহকরা চরম হয়রানির শিকার হচ্ছেন।

এ ব্যাপারে অগ্রণী ব্যাংক বোরহানউদ্দিন শাখা ব্যবস্থাপক সাইয়েদুল ইসলাম বলেন, আমাদের ব্যাংকে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন অডিট হয়। সেখানে সমস্যা হয়। তাই পূঙ্খানু পূঙ্খানুভাবে যাচাই বাছাইয়ের মাধ্যমে গ্রাহকদের চেক পাস করা হয়। এতে গ্রাহকদের কিছু ভোগান্তি হতে পারে।


মন্তব্য