kalerkantho

বুধবার । ১৮ জানুয়ারি ২০১৭ । ৫ মাঘ ১৪২৩। ১৯ রবিউস সানি ১৪৩৮।


সেই বিথীকে বাঁচাতে এগিয়ে আসার আকুতি

ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি    

৩০ মার্চ, ২০১৬ ২১:২৮



সেই বিথীকে বাঁচাতে এগিয়ে আসার আকুতি

"আমি বোধ অয় টেহার কাছে আইড়া গেছি, আর তো পারতাছিনা, আমার সোনার ধনরে বোধ অয় আর বাঁচানো যাইতো না। কেউ কী নাই আমারে একটু দেহনের, হে আল্লাহ, তুমি আমার ধনরে বাঁচাও"- এভাবে হাসপাতালের বারান্দায় দাঁড়িয়ে আকুতি জানিয়ে  কথাগুলো বলেন ১৭ দিন আগে ময়মনসিংহের নান্দাইলে ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত ১৭ মাস বয়সের বিথীর দিনমজুর বাবা দ্বীন ইসলাম।

জমির মালিকানা নিয়ে বিথীর বাবার সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল ফুফাতো ভাই মো. শাহজাহানের। এ অবস্থায় গত ১৩ মার্চ সকালে নান্দাইল পৌরসভার চণ্ডীপাশা এলাকায় নয় শতক জমির ওপর একটি চালাঘর তৈরির চেষ্টা করেন দ্বীন ইসলাম। এতে বাধা দেন শাহজাহান। একপর্যায়ে দুইজনের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। দ্বীন ইসলাম জানান, শাহজাহান তাঁকে ছুরি দিয়ে আঘাত করার চেষ্টা করলে তিনি দৌড়ে পালিয়ে যান। পরে অন্য এক শিশুর কোলে থাকা তার শিশুকন্যা বিথীকে ছুরিকাঘাত করে শাহজাহান। এতে ছুরিটি বিথীর পেটে এফোড়-ওফোড় হয়ে বেরিয়ে যায়। গুরুতর অবস্থায় বিথীকে নান্দাইল হাসপাতাল থেকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে দুই ঘণ্টার অস্ত্রোপচারের পর চিকিৎসকরা বিথীর পেট থেকে ছুরিটি বের করেন।

জানা যায়, হাসপাতালের শিশু বিভাগের পোস্ট অপারেটিভে পর্যবেক্ষণে  রয়েছে শিশুটি। এরপর সপ্তাহ খানেক বিথীর অবস্থা ভালো থাকলেও দিন দিন তার অবস্থা অবনতির দিকে যাচ্ছে। বিথীর বাবা দ্বীন ইসলাম জানান, তার দিন আনতে পান্তা ফুড়ায়। এক বেলা খেলে অন্য বেলা খাবার জোটে না। এ অবস্থায় প্রতিদিন প্রায় দুই হাজার টাকার ওষুধ লাগছে। ধার-দেনা করে এতদিন চললেও এখন আর কুলোতে পারছেন  না তিনি। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, অসুস্থ বিথীর ক্ষত স্থানে সংক্রমণ  দেখা দিয়েছে। শিশুটি ঝুঁকির মধ্যে থাকায় তার উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন। সমাজের বিত্তশালীরা সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলে শিশুটি বেঁচেও যেতে পারে। তাকে সাহায্যের জন্য যোগাযোগের ঠিকানা-শিশুটির মা বিউটি বেগম- মোবাইল নম্বর ০১৬৮৮২১৮৪৭৮।

 


মন্তব্য