kalerkantho


সহযোদ্ধাকে লাঞ্ছিতের প্রতিবাদে মুক্তিযোদ্ধাদের ফুলেল শুভেচ্ছা প্রত্যাখান, পরে ফের গ্রহণ

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি   

২৬ মার্চ, ২০১৬ ১৯:৪৬



সহযোদ্ধাকে লাঞ্ছিতের প্রতিবাদে মুক্তিযোদ্ধাদের ফুলেল শুভেচ্ছা প্রত্যাখান, পরে ফের গ্রহণ

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার বহুলী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী চেয়ারম্যন প্রার্থী ও সহযোদ্ধা বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারী তালুকদারকে লাঞ্ছিতের প্রতিবাদে বীর মুক্তিযোদ্ধারা জেলা প্রশাসনের ফুলেল শুভেচ্ছা প্রত্যাখান করেন। আজ শনিবার দুপুরে জেলা শহরের শহীদ এম.মনসুর আলী অডিটরিয়ামে জেলা প্রশাসন কর্তৃক আয়োজিত স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদদের পরিবারবর্গের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সহযোদ্ধা বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারীর প্রতি সহমর্মীতা দেখাতে আমন্ত্রিত তারই সহযোদ্ধারা এ ধরনের পদক্ষেপ নেন। জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম খান ও যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক (৩) গাজী আব্দুল বারী বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ফুলেল শুভেচ্ছা প্রত্যাখানের বিষয়টি স্বীকার করেছেন।

জেলা প্রশাসক মো. বিল্লাল হোসেনের সভাপতিত্বে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে স্থানীয় সাংসদ প্রফেসর হাবিবে মিল্লাত মুন্না, নারী সাংসদ সেলিনা বেগম স্বপ্না, পুলিশ সুপার মিরাজ উদ্দিন আহম্মেদ, গাজী আমিনুল ইসলাম চৌধুরী, মেজর (অবঃ) মোঃ জাফর হোসেন মুজাম, পৌর মেয়র সৈয়দ আব্দুর রউফ মুক্তা, চেম্বার প্রেসিডেন্ট আবু ইউসুফ সূর্য্য, গাজী শফিকুল ইসলাম শফি উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় অনুষ্ঠানে বীর মুক্তিযোদ্ধার পক্ষ থেকে যথাযথভাবে অভিযোগ করা হলে 'দোষীদের দ্রত গ্রেপ্তার করা হবে'- পুলিশ সুপারের এমন আশ্বাসের প্রেক্ষিতে বীর মুক্তিযোদ্ধারা অবশেষে প্রত্যাখানকৃত ফুলেল শুভেচ্ছা ফের গ্রহণ করেন।

মহান মুক্তিযুদ্ধে বীরত্বের সাথে অংশগ্রহণ ও ভূমিকা রাখার জন্য জেলা প্রশাসন ও পৌরসভার পক্ষ থেকে ১৩৫ জনকে ক্রেষ্ট প্রদান করা হয়।

উল্লেখ্য, গতকাল শুক্রবার দুপুরে সদর উপজেলার বহুলী ইউনিয়নের বাগডুমুর এলাকায় যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের কতিপয় সন্ত্রাসী ও নেতাকর্মীর হামলায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারী তালকদার লাঞ্ছিত হন। এ সময় অন্তত আরো পাঁচজন আহত হন। আগামী ৩১ মার্চ ইউনিয়ন পরিষদের দ্বিতীয় দফা নির্বাচনে সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।


মন্তব্য