kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৯ জানুয়ারি ২০১৭ । ৬ মাঘ ১৪২৩। ২০ রবিউস সানি ১৪৩৮।


১০০ মেগাওয়াটের পুরোটাই দিলাম, রসমালাই পাঠান : প্রধানমন্ত্রী

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৩ মার্চ, ২০১৬ ২০:১৫



১০০ মেগাওয়াটের পুরোটাই দিলাম, রসমালাই পাঠান : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, কুমিল্লাবাসীকে ভারত থেকে আমদানি করা ১০০ মেগাওয়াটের পুরোটাই দিয়ে দিলাম। এখন বেশি করে রসমালাই পাঠান। এ সময় কুমিল্লা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এ বক্তব্যে শুনে উপস্থিত মন্ত্রী, সংসদ সদস্য ও সুধীজনের মধ্যে হাস্যরসের সৃষ্টি হয়।

তিনি বলেন, ভারতের ত্রিপুরা থেকে আমদানি করা বিদ্যুতের পুরোটাই কুমিল্লার মানুষ ব্যবহার করবে। তার তাদের কাছে আমার আহ্বান থাকবে যাতে এর অপব্যবহার না হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ভবিষ্যতে আরো বিদ্যুত আমদানি করা হবে। তিনি আরো বলেন, কুমিল্লা ত্রিপুরা গ্রীডে আন্ত:সংযোগের মাধ্যমে ভারতের সাথে বাংলাদেশের বন্ধুত্বের সম্পর্ক আরো সুদৃঢ় হলো। সম্পর্ক ভালো থাকলে উন্নয়ন কাজও তরান্বিত হয়। কুমিল্লাবাসী বাড়তি বিদ্যুৎ সুবিধা পেল। বাড়তি সুযোগ পেলেই হবে না, বিদ্যুৎ সাশ্রয় করে ব্যবহার করতে হবে।

আজ বুধবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বক্তব্যের পরপরই ডিজিটাল পদ্ধতিতে কুমিল্লা-ত্রিপুরা গ্রীড আন্ত:সংযোগ ফলকের পর্দা সরানো হয়। এ সময় মুহুমুহু করতালি ও ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কুমিল্লা-ত্রিপুরা গ্রীড আন্ত:সংযোগের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার।

উদ্বোধনের পরপরই কুমিল্লা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল (লোটাস কামাল), রেলপথমন্ত্রী মুজিবুল হক মুজিব, মনোহরগঞ্জের সংসদ সদস্য তাজুল ইসলাম, কুমিল্লা সদর আসনের সংসদ সদস্য হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার ও বরুড়ার সংসদ সদস্য নরুল ইসলাম মিলণসহ জেলা প্রশাসন ও অন্যান্য বিভাগের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের উপস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে প্রথমে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান জেলা প্রশাসক মো: হাসানুজ্জামান কল্লোল।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বক্তব্য রাখেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। তিনি বলেন, বিদ্যুৎ হচ্ছে সকল উন্নয়নের মূল চালিকা শক্তি। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার আগে বিদ্যুতের ব্যাপক ঘাটতি ছিল। বিদ্যুৎ কখন আসতো কখন যেতো বুঝা যেতো না। কৃষক বিদ্যুৎ পেত না। বিদ্যুতের দাবিতে ঝাড়ু মিছিল হয়েছে। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর বিদ্যুতের প্রচুর উন্নয়ন হয়েছে। দেশ ও জনগণ উপকৃত হচ্ছে।

পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের বক্তব্যের শেষ পর্যায়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ত্রিপুরা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকারের সাথে কথা বলার জন্য কুমিল্লাবাসীকে ধন্যবাদ জানিয়ে বিদায় নেন এবং ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকারের সাথে কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্যের পর কুমিল্লা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে উপস্থিত সুধীজনদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, রেলপথমন্ত্রী মুজিবুল হক মুজিব, মনোহরগঞ্জের সংসদ সদস্য তাজুল ইসলাম ও কুমিল্লা সদর আসনের সংসদ সদস্য হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার।

 


মন্তব্য