kalerkantho


রায়গঞ্জে নির্বাচনোত্তর সহিংসতায় নিহত ১ আহত ১০

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি   

২৩ মার্চ, ২০১৬ ১৮:৩৯



রায়গঞ্জে নির্বাচনোত্তর সহিংসতায় নিহত ১ আহত ১০

সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর একজন পরাজিত ইউনিয়ন সদস্যের সমর্থকদের হামলায় নিহত হয়েছেন বিজয়ী এক ইউপি সদস্যের শ্বাশুড়ি নোনাই বেগম(৫৫)। গতকাল মঙ্গলবার রাতে ফলাফল ঘোষণার পর তাৎক্ষণিকভাবে বিজয়ী প্রার্থী উল্লাস মিছিল বের করলে বিক্ষিপ্ত ঘটনায় নিহত হয় ওই মধ্য বয়সী নারী। তবে তার শরীরে কোথাও কোন গুরুতর জখমের চিহ্ণ ছিল না।

৯ নম্বর ওয়ার্ডের বিজয়ী ইউপি সদস্য নবাব আলী অভিযোগ করে বলেন, সিলিং ফ্যান প্রতিক নিয়ে তিনি নির্বাচনে জয়লাভ করেছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী সামিদুল ইসলাম (ফুটবল) পরাজয় মেনে না নিয়ে দেশিয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে তার কর্মী-সমর্থক ও আত্মীয়-স্বজনদের ওপরে হামলা চালায়। হামলাকারীদের লাঠির আঘাতে ঘটনাস্থলেই শ্বাশুড়ি নোনাই বেগম মারা যান ও অপর ১০ জন আহত হয়। তাদের মধ্যে আশঙ্কাজনক অবস্থায় মালেক নামে একজনকে বগুড়ায় পাঠানো হয়েছে।

তবে পরিচয় না প্রকাশ করার শর্তে এলাকার স্থানীয় সূত্র জানায়, ফলাফল ঘোষণার পর বিজয়ী প্রার্থী নবাব আলীর সমর্থকেরা জয়েনপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে ভোট কেন্দ্রে উল্লাশ শুরু করে। এ সময় ভোট কারচুপির অভিযোগ এনে পরাজিত প্রার্থী সামিদুল ইসলামের সাথে বিজয়ী প্রর্থীর নবাব আলীর মধ্যে বাকবিতণ্ডা শুরু হয়। সে সময় উভয় পক্ষের সমর্থদের মধ্যে হাতাহাতি এবং এক পর্যায়ে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া শুরু হয়। হুড়োহুড়ির মধ্যে আতঙ্ক কিংবা পদদলিত হয়ে মারা যান বিজয়ী নবাব আলীর শ্বাশুড়ি।

এ ব্যাপারে রায়গঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাশেদুল হাসান জানান, নিহত নোনাই বেগমের ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। ময়নাতদন্ত রিপোটের ওপর ভিত্তি করেই পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে আজ  বিকেল ৫টা সময় পার হলেও এ ব্যাপারে এখনো মামলা দায়ের করা হয়নি।

 


মন্তব্য