kalerkantho


পৌর ছাত্রলীগ সভাপতির বাড়িতে হামলা

রামগঞ্জে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১০

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি    

২২ মার্চ, ২০১৬ ১০:৩৭



রামগঞ্জে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১০

আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ শহরে ছাত্রলীগের দুই পক্ষে সংঘর্ষ ও বেশ কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এতে উভয় পক্ষের ১০ নেতাকর্মী আহত হন।

গতকাল সোমবার রাত ৯টার দিকে পৌরসভা কার্যালয়ের সামনের সড়কে এ ঘটনা ঘটে। পরে উত্তেজিত নেতাকর্মীরা পুলিশের সহযোগিতায় পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি সোহেল চৌকিয়ার বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এনিয়ে দুই পক্ষের নেতাকর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

দলীয় সূত্র ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সম্প্রতি রামগঞ্জ পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে নির্বাচন নিয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি এমরান হোসেন বাচ্চু ও পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি সোহেল চৌকিয়ার মধ্যে বিরোধ চলে আসছে। এ নিয়ে নির্বাচনের পর দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ, অগ্নিসংযোগ, হামলা-পাল্টাহামলার ঘটনাও ঘটে। এর জের ধরে সোমবার রাতে পৌরসভা কার্যালয়ের সামনে সোহেলের অনুসারী পৌর কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান রুবেলকে মারধর করে এমরানের লোকজন। একপর্যায়ে দুই পক্ষের নেতাকর্মীরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এ সময় বেশ কয়েকটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটনানো হয়। এতে ১০ নেতাকর্মী আহত হন।

তারা স্থানীয় ক্লিনিকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

ছাত্রলীগ নেতা সোহেল চৌকিয়া বলেন, "পরিকল্পিতভাবে এমরান আমার নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালিয়েছে। পরে পুলিশের এসআই এ কে এম ছায়েদুর রহমানের নেতৃত্বে প্রতিপক্ষের লোকজন আমার বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করেছে। " তবে পাল্টা অভিযোগ করেন এমরান হোসেন বাচ্চু। তিনি বলেন, "এ ঘটনার জন্য দায়ী সোহেল ও তার লোকজন। "

রামগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) সোলায়মান চৌধুরী বলেন, "খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি। পুলিশের বিরুদ্ধে হামলায় সহযোগিতার অভিযোগ সঠিক নয়।

 


মন্তব্য